| ঢাকা, বুধবার, ৫ অক্টোবর ২০২২, ১৯ আশ্বিন ১৪২৯

রাজার রাজ্যে, রাজাই রাজা: গল্প মনে হলেও সত্যি

২০২২ আগস্ট ০৮ ১৮:৪৮:৪৬
রাজার রাজ্যে, রাজাই রাজা: গল্প মনে হলেও সত্যি

জিম্বাবুয়ে সফরে স্বাগতিক দলের ব্যাটার সিকান্দার রাজার কাছেই নাস্তানাবুদ বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। তিনি একাই টি-২০ ও ওয়ানডে সিরিজে টাইগারদের নাকানিচুবানি খাইয়েছেন। পরপর টি-২০ ও এক ম্যাচ হাতে রেখেই ওয়ানডে সিরিজ করে নিয়েছেন নিজেদের।

৯ বছর ১৯ ম্যাচ পর বাংলাদেশের বিপক্ষে ম্যাচ জিতল জিম্বাবুয়ে। তাও পর পর দুইটি। টি-২০ সিরিজ ২-১ জিতে ওয়ানডে মিশনে ২-০ তো এগিয়ে থেকে সিরিজ নিশ্চিত করেছে স্বাগতিক জিম্বাবুয়ে। আর এক ম্যাচ জিততে পারলেই ২১ বছরপর বাংলাদেশকে হোয়াটওয়াশ করার স্বাদ পাবে সিকান্দার রাজার দল। এ যেন নিজের রাজ্যে সিকান্দার রাজাই নিজে রাজা।

টি-২০ সিরিজের প্রথম ম্যাচে জিম্বাবুয়ে কাছে ১৭ রানে হারে বাংলাদেশ। জিম্বাবুয়ের ছুঁড়ে দেয়া ২০৬ রানের টার্গেটে ৬ উইকেটে ১৮৮ রান তুলতে সক্ষম হয়ত টিম বাংলাদেশ। এ ম্যাচে জয়ের নায়ক সিকান্দার রাজা। খেলেছেন ৭টি চার ও ৪টি ছক্কায় ২৬ বলে অপরাজিত ৬৫ রানের ইনিংস। ৩ ওভার বলে করে ৩০ রানে নেন এক উইকেট।

এ ম্যাচে ১৩তম ওভারে দলীয় ৯৯ রানে উইলিয়ামসন ফিরলে তার জায়গায় উইকেটে আসেন সিকান্দার রাজা। নিজের মুখোমুখি হয়ে প্রথম ৬ বল থেকে ৮ রান নেন রাজা। সপ্তম বলে পেসার তাসকিন আহমেদকে ছক্কা মারেন রাজা। এরপর থেকেই শুরু হয় রাজার চার-ছক্কার ঝড়। ১৭তম ওভারের প্রথম বলে ৩৪ ম্যাচের টি-২০ ক্যারিয়ারে সপ্তম হাফ-সেঞ্চুরির স্বাদ নেন মাধভেরে। এজন্য ৩৭ বল খেলেন তিনি। ১৭তম ওভারে ১৩, ১৮তম ওভারে ১৪ রান উঠে। আর ১৯তম ওভারের প্রথম তিন বলে ১টি চার ও ২টি ছক্কা মারেন রাজা। শরিফুলের করা ঐ ওভার থেকে ১৯ রান আসে। ঐ সময় ৩ উইকেটে ১৮৬ রান ছিলো জিম্বাবুয়ে।

মুস্তাফিজের করা শেষ ওভার থেকে ১৯ রান তুলে জিম্বাবুয়ের স্কোর ২০০ পার করেন রাজা ও মাধভেরে। তৃতীয় বলে ২ রান নিয়ে ২৩ বলে টি-২০ ক্যারিয়ারের চতুর্থ হাফ-সেঞ্চুরির দেখা পান রাজা। আর শেষ তিন বলে ২টি চার ও ১টি ছক্কা মারেন রাজা। ৭টি চার ও ৪টি ছক্কায় ২৬ বলে অপরাজিত ৬৫ রান করেন রাজা। ৯টি চারে ৪৬ বলে ৬৭ রান করে আহত অবসর হন মাধভেরে। চতুর্থ উইকেটে মাধভেরে-রাজার ৪৩ বলে অবিচ্ছিন্ন ৯১ রানের জুটিতে ২০ ওভারে ৩ উইকেটে ২০৫ রানের বড় সংগ্রহ পায় জিম্বাবুয়ে। বাংলাদেশের বিপক্ষে এটি সর্বোচ্চ দলীয় রান জিম্বাবুয়ে।

দ্বিতীয় টি-২০তে মোসাদ্দেক হোসেনের দূরন্ত বোলিংয়ে জিতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজে সমতা আনে সফরকারী বাংলাদেশ। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ৭ উইকেটের জয় পায় বাংলাদেশ। ২০ রানে ৫ উইকেট নিয়ে ম্যাচসেরা হন মোসাদ্দেক। এ ম্যাচেও ৬২ রানের ইনিংস খেলেন সিকান্দার রাজা।

যখন মোসাদ্দেকের ঘুর্ণিতে ৩১ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে খাদের কিনারায় জিম্বাবুয়ে। সেখান থেকে ঘুড়ে দাঁড়ানোর স্বপ্ন দেখান গত ম্যাচের নায়ক সিকান্দার রাজা। প্রথম টি-২০তে ২৬ বলে অনবদ্য ৬৫ রানের বিস্ফোরক ইনিংস খেলা রাজা দলের চরম বিপর্যয়ের মাঝে আরো একবার নিজেকে মেলে ধরেন। রায়ান বার্লকে নিয়ে লড়াই শুরু করেন তিনি। প্রথম ৩২ বলে কোন বাউন্ডারি ও ওভার বাউন্ডারি মারতে ব্যর্থ হন তারা। আফিফের করা ১৩তম ওভারে ১টি করে চার ও ছক্কা মারেন রাজা-বার্ল। মুস্তাফিজের করা ১৫তম ওভারে রাজার ব্যাট থেকে পরপর দু’টি চার আসে। ঐ ওভারের শেষ বলে টি-২০ ক্যারিয়ারের পঞ্চম হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন রাজা। ৪৪ বলে অর্ধশতকের দেখা পান তিনি।

এ ম্যাচে লিটন দাসের ৫৬ ও আফিফ হোসেনের অপরাজিত ৩০ রানের ইনিংসে ১৫ বল বাকি থাকতেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় বাংলাদেশ। ৭ উইকেটের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়েন আফিফ ও শান্ত। এতে টি-২০ সিরিজে ১-১ সমতায় আসে।

তৃতীয় টি-২০তে হেরে জিম্বাবুয়ের কাছে তিন ম্যাচের সিরিজ হারের লজ্জা পায় বাংলাদেশ। সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ম্যাচে জিম্বাবুয়ের কাছে ১০ রানে হারে বাংলাদেশ। ফলে তিন ম্যাচের সিরিজ ২-১ ব্যবধানে জিতে নেয় স্বাগতিক জিম্বাবুয়ে। জিম্বাবুয়ের সিরিজ জয়ের পেছনে বড় অবদান রাখেন রায়ান বার্ল। এ ম্যাচে ২৮ বলে ৫৪ রানের বিধ্বংসী ইনিংস খেলেন তিনি। এতে ম্যাচ সেরা হন বার্ল। যদিও এ ম্যাচে রানের খাতা খুলতে ব্যর্থ হন গত দুই ম্যাচে অর্ধশতক পাওয়া সিকান্দার রাজা। ষষ্ঠ ওভারে দ্বিতীয়বার আক্রমনে এসে সিকান্দার রাজাকে খালি হাতে থামান মাহেদি।

টি-২০ সিরিজ খুয়িয়ে নিজেদের সেরা ফরম্যাট ওয়ানডেতে ঘুরে দাঁড়ানোর প্রবল সম্ভবনা নিয়ে প্রথম ম্যাচে মাঠে নামে টিম বাংলাদেশ। তবে এখানেও বাঁধ সাধে টি-২০ সিরিজ সেরা জিম্বাবুয়ের সিকান্দার রাজা।

দুই ব্যাটার ইনোসেন্ট কাইয়া ও সিকান্দার রাজার জোড়া সেঞ্চুরিতে জিম্বাবুয়ের কাছে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচে অসহায়ভাবে হারে সফরকারী বাংলাদেশ। কাইয়ার ১১০ ও রাজার অপরাজিত ১৩৫ রানের উপর ভর করে ৫ উইকেটের জয় পায় স্বাগতিক জিম্বাবুয়ে। এতে নয় বছর ও ১৯ ম্যাচ পর জিম্বাবুয়ে কাছে হার বরণ করলো তামিম ইকবালের দল। ২০১৩ সালের মে’তে বুলাওয়েতে সর্বশেষ জিম্বাবুয়ের কাছে ৭ উইকেটে হেরেছিলো বাংলাদেশ। এই জয়ে তিন ম্যাচের সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায় স্বাগতিক জিম্বাবুয়ে।

টস হেরে আগে ব্যাট করে লিটন দাসের ৮১, আনামুল হক বিজয়ের ৭৩, তামিম ইকবালের ৬২, মুশফিকুর রহিমের অপরাজিত ৫২ ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদে অপরাজিত ২০ রানের ইনিংসের ৩০৩ রানের বড় স্কোর দাড় করায় টিম বাংলাদেশ। এ ম্যাচে নিয়ুচি ও রাজা ১টি করে উইকেট নেন।

জয়ের জন্য ৩০৪ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই বিপর্যয়ের সম্মুখিন হয় স্বাগতিক জিম্বাবুয়ে। ১৪তম ওভারে দলীয় ৬২ রানে তৃতীয় উইকেট পতনের পর জিম্বাবুয়ের হাল ধরেন কাইয়া ও রাজা। উইকেটে সেট হতে সময় নেননি তারা। ৩১তম ওভারের দ্বিতীয় বলে মুস্তাফিজকে ছক্কা মেরে ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ২১তম হাফ সেঞ্চুরি তুলেন রাজা। দু’ বার জীবন পেয়ে ৩৯তম ওভারের ওয়ানডে ক্যারিয়ারের চতুর্থ ম্যাচেই প্রথম সেঞ্চুরির দেখা পান কাইয়া। ঐ ওভারের শেষ বলে ১১৫তম ওয়ানডেতে চতুর্থ সেঞ্চুরি করেন রাজা। শেষ ১০ ওভারে ৬২ রানের দরকার পড়ে জিম্বাবুয়ের। অবশেষে ৪২তম ওভারে কাইয়া-রাজা জুটি ভাঙ্গেন মোসাদ্দেক। শর্ট ফাইনে শরিফুলকে ক্যাচ দেন কাইয়া। ১১টি চার ও ২টি ছক্কায় ১২২ বলে ১১০ রান করেন কাইয়া। চতুর্থ উইকেটে ১৭২ বলে ১৯২ রানের ম্যাচজয়ী জুটি গড়েন তারা। বাংলাদেশের বিপক্ষে চতুর্থ উইকেটে এটিই সর্বোচ্চ রানের জুটি কাইয়া ও রাজার। কাইয়া যখন ফিরেন তখন ৪৯ বলে ৫০ রান দরকার ছিলো জিম্বাবুয়ের। বাকী কাজটুকু সাড়তে সাবধানে এগোতে থাকেন রাজা ও লুক জংওয়ে।

বাংলাদেশের সিরিজ বাঁচানোর ম্যাচে দুই ব্যাটার সিকান্দার রাজা ও অধিনায়ক রেগিস চাকাবভার জোড়া সেঞ্চুরিতে এক ম্যাচ হাতে রেখেই বাংলাদেশের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ জয় নিশ্চিত করে স্বাগতিক জিম্বাবুয়ে। রাজা অপরাজিত ১১৭ ও চাকাবভা ১০২ রান করেন। দ্বিতীয় ওয়ানডেতে জিম্বাবুয়ে ৫ উইকেটে হারিয়েছে বাংলাদেশকে। সিরিজ জয়ের সাথে ২-০ ব্যবধানে এগিয়েও গেল স্বাগতিক জিম্বাবুয়ে। প্রথম ম্যাচেও ৫ উইকেটে জিতেছিলো জিম্বাবুয়ে। ২০১৩ সালের পর বাংলাদেশের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ জয়ের স্বাদ নিলো জিম্বাবুয়ে। ঐবার ঘরের মাঠে তিন ম্যাচের সিরিজ ২-১ ব্যবধানে জিতেছিলো জিম্বাবুয়ে। আর ২০২১ সালের মে থেকে টানা পাঁচটি সিরিজ জয়ের পর অবেশেষে হার বরণ করলো তামিমের দল। এ ম্যাচেও সেরা হন জিম্বাবুয়ের সিকান্দার রাজা।

২৯১ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে আগের ম্যাচের মত এবারও শুরুতেই বিপদে পড়ে জিম্বাবুয়ে। পেসার হাসান ও দুই স্পিনার মিরাজ-তাইজুলের বোলিং তোপে ৪৯ রানে ৪ ব্যাটারকে হারায় জিম্বাবুয়ে। এ পরিস্থিতিতেও ঘুরে দাঁড়ানোর স্বপ্ন ছিলো জিম্বাবুয়ের। কারণ ক্রিজে ছিলেন ক্যারিয়ারের সেরা ফর্মে সিকান্দার রাজা। বাংলাদেশকে হারানো টি-২০ সিরিজে সেরা খেলোয়াড়ের হবার পর প্রথম ওয়ানডেতে সেঞ্চুরি করেন রাজা। অধিনায়ক রেগিস চাকাবভাকে নিয়ে লড়াই শুরু করেন এ ব্যাটিং অলরাউন্ডার। ২৫তম ওভারে ১০০তে পৌঁছায় জিম্বাবুয়ের স্কোর। মিরাজের ভুলে রান আউটের হাত থেকে বাঁচেন রাজা। তখন তার রান ছিলো ৪২ রানে। ২৮তম ওভারে মিরাজকে ছক্কা মেরে ৬৭ বলে হাফ-সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন রাজা।

বোলারদের দাপটের সঙ্গে সামলে ৩৮তম ওভারে জিম্বাবুয়ের রান ২০০তে নিয়ে যান রাজা ও চাকাবভা। শেষ ১০ ওভারে ৭১ রান দরকার পড়ে জিম্বাবুয়ের। ৪২তম ওভার শেষে নব্বইয়ের ঘরে পৌঁছে যান রাজা ও চাকাবভা। পরের ওভারটি হয় রাজা ও চাকাবভার জন্য বড় আনন্দের। হাসানের করা ৪৩তম ওভারের প্রথম বলে ২ রান করে ওয়ানডে ক্যারিয়ারের পঞ্চম ও টানা দ্বিতীয় সেঞ্চুরি তুলে নেন রাজা। আর ঐ ওভারের চতুর্থ বলে মিড উইকেট দিয়ে ছক্কা মেরে ৫৫ ম্যাচের ওয়ানডে ক্যারিয়ারে প্রথম সেঞ্চুরির দেখা পান চাকাবভা। রাজা ১১৫ বলে ও চাকাবভা ৭২ বলে সেঞ্চুরির পান। সেঞ্চুরি করার পরপরই প্যাভিলিয়নে ফেরেন চাকাবভা। মিরাজের বলে তামিমকে ক্যাচ দেন তিনি। ৭৫ বলে ১০টি চার ও ২টি ছক্কায় ১০২ রান করেন চাকাবভা। চাকাবভার আউটে ভাঙ্গে জুটি। ১৬৯ বলে ২০১ রান যোগ করেন রাজা ও চাকাবভা। ফলে নিজেদের ওয়ানডে ইতিহাসে পঞ্চম উইকেটে সর্বোচ্চ রানের জুটির নয়া রেকর্ড গড়েন রাজা ও চাকাবভা। আর যেকোন উইকেটে তৃতীয় সর্বোচ্চ জুটির রান জিম্বাবুয়ের।

চাকাবভা যখন ফিরেন তখন জিম্বাবুয়ের দরকার ৪১ বলে ৪১ রান। শেষ ৪ ওভারে জয়ের জন্য সমীকরন দাঁড়ায় ২৫ রান। ৪৭তম ওভারে জিম্বাবুয়ের পথটা পানির মত সহজ করে ফেলেন অভিষেক ম্যাচ খেলতে নামা টনি মুনওঙ্গা। শরিফুলের করা ঐ ওভারে ২টি ছয় ও ১টি চারে ১৯ রান নেন মুনওঙ্গা। তাই জয়ের জন্য শেষ ৩ ওভারে ৬ রান দরকার পড়ে জিম্বাবুয়ের। ৪৮তম ওভারের প্রথম দুই বলে ২ রান। আর তৃতীয় ওভারে চার মেরে জিম্বাবুয়েকে ম্যাচ ও সিরিজ জয়ের স্বাদ দেন মুনওঙ্গা। ১৬ বলে ২টি করে চার-ছক্কায় অপরাজিত ৩০ রান করেন মুনওঙ্গা।

অন্য প্রান্তে ১২৭ বলে অপরাজিত ১১৭ রান করেন রাজা। তার ইনিংসে ৮টি চার ও ৪টি ছক্কা ছিলো। বাংলাদেশের হাসান-মিরাজ ২টি করে উইকেট নেন। ম্যাচ সেরা হন রাজা।

এখনো হাতে আছে এক ম্যাচ। এ ম্যাচেও কি রাজার তান্ডবে উড়ে যাবে টিম বাংলাদেশ। দেখার অপেক্ষা।

পাঠকের মতামত:

ক্রিকেট এর সর্বশেষ খবর

ক্রিকেট - এর সব খবর



রে