ঢাকা, বুধবার, ২৯ জানুয়ারি ২০২০, ১৬ মাঘ ১৪২৬

ধীরে ধীরে জমছে ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব

২০২০ জানুয়ারি ১৪ ২৩:১০:০৬
ধীরে ধীরে জমছে ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব

১৮তম ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব জমে উঠছে ধীরে ধীরে। গতকাল সোমবার তৃতীয় দিনে রাজধানীতে ঢাকা ক্লাবের স্যামসন এইচ চৌধুরী মিলনায়তনে গিয়ে দেখা গেল, বেলা দুইটার অনুষ্ঠান শুরু হয়েছে ঠিক দুইটায়। আলাপ–আলোচনার অনুষ্ঠান, বিষয় ‘দক্ষিণ এশিয়ার নারীবাদী

চলচ্চিত্রে নতুন মোড়’। কথা বলেছেন মীনাক্ষী শেড্ডে, ফাঁকে ফাঁকে পর্দায় কখনো ভেসে উঠছিল লেখা, কখনো সিনেমার গান, দৃশ্য আর ট্রেলার। আলোচনায় উঠে এল স্বাধীনতাযুদ্ধ, সেক্সুয়ালিটি, লিঙ্গ ও জাতীয়তা, ধর্ম ও সংখ্যলঘু, সহিংসতা, নির্যাতনসহ নানা বিষয়ে নির্মিত চলচ্চিত্রে নারীর প্রথাবিরোধী ভূমিকার কথা। আলাদা করে বলা হল বাংলাদেশের বেশ কয়েকটা ছবির কথা। সেগুলোর মধ্যে রয়েছে চাষী নজরুল ইসলাম পরিচালিত ‘সংগ্রাম’, তারেক মাসুদের ‘মাটির ময়না’, নাসির উদ্দীন ইউসুফের ‘গেরিলা’, মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর ‘টেলিভিশন’, রুবাইয়াত হোসেন পরিচালিত ‘মেড ইন বাংলাদেশ’।

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের ছবি ‘বিজয়া’ ও ‘বিসর্জন’–এ বাংলাদেশের গুণী অভিনয়শিল্পী জয়া আহসান অভিনীত পদ্মা চরিত্রের প্রশংসা করলেন মীনাক্ষী। সাম্প্রতিক সময়ের বলিউডের ‘রাজি’, ‘ছপাক’, ‘পদ্মাবত’, ‘বাজিরাও মাস্তানি’, ‘গাল্লি বয়’, ‘মাসান’, ‘লাস্ট স্টোরিজ’, লিপিস্টিক আন্ডার মাই বোরখা’, ‘কুইন’ প্রভৃতি সিনেমার নাম উঠে আসে তাঁর বক্তৃতায়। বলা হয় বেশ কিছু দক্ষিণ ভারতীয়, শ্রীলঙ্কান, নেপালি, ভুটানি ছবির কথা। বিশটির বেশি আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে বিচারকের দায়িত্ব পালন করেছেন মীনাক্ষী শেড্ডে। দক্ষিণ ভারতীয় এই সাংবাদিক ও চলচ্চিত্র সমালোচক বার্লিন ফিল্ম ফেস্টিভ্যালের ভারত ও দক্ষিণ এশিয়া অংশের উপদেষ্টা হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছেন।

জাকির হোসেন রাজুর উপস্থাপনায় এই অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন নরওয়ের শিক্ষক, প্রযোজক ও পরিচালক এইজ হোফার্ট ও থাইল্যান্ডের চলচ্চিত্রকর্মী ক্যাথরিন গ্রস। রেইনবো চলচ্চিত্র সংসদের আয়োজনে ১৮তম ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের অংশ হিসেবে গত রোববার থেকে ছিল ‘ষষ্ঠ আন্তর্জাতিক উইমেন ফিল্ম মেকারস্ কনফারেন্স’। এতে যোগ দেন মার্কিন চলচ্চিত্র উৎসবের কিউরেটর, লেখক ও ব্লগার সিডনি লেভিন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক গীতিয়ারা নাসরীন, অস্ট্রেলিয়ান অভিনেতা ও নির্মাতা রোবেন হিউগেন, পোলিস নির্মাতা জোয়ানা ক্রিস-ক্রাউজে প্রমুখ।ঢাকার সাতটি ভেন্যুতে রেইনবো চলচ্চিত্র সংসদ আয়োজিত উৎসবে প্রদর্শিত হবে ৭৪টি দেশের ২২০টি চলচ্চিত্র।

এশিয়ান ফিল্ম প্রতিযোগিতা বিভাগ, রেট্রোস্পেকটিভ বিভাগ, বাংলাদেশ প্যানোরমা, সিনেমা অব দ্য ওয়ার্ল্ড, চিলড্রেন ফিল্মস, স্পিরিচুয়াল ফিল্মস, শর্ট অ্যান্ড ইনডিপেন্ডেন্ট ফিল্ম এবং উইমেন্স ফিল্ম মেকার বিভাগে দেখানো হবে ছবিগুলো। এবারের উৎসবে বিভিন্ন দেশ থেকে ৯৫ জন প্রতিনিধি অংশ নেবেন। ‘নান্দনিক চলচ্চিত্র, মননশীল দর্শক, আলোকিত সমাজ’ প্রতিপাদ্যে ৯ দিনব্যাপী উৎসব শেষ হবে ১৯ জানুয়ারি। উৎসবের ২২০টির মধ্যে পূর্ণদৈর্ঘ্য (৭০ মিনিটের বেশি) চলচ্চিত্রের সংখ্যা ১১৭, স্বল্পদৈর্ঘ্য ও স্বাধীন চলচ্চিত্রের সংখ্যা ১০৩। বাংলাদেশের চলচ্চিত্র আছে ২৬টি, যার মধ্যে ১৮টি স্বল্পদৈর্ঘ্য ও স্বাধীন এবং ৮টি পূর্ণদৈর্ঘ্য।

উৎসবের ভেন্যুগুলো হচ্ছে জাতীয় জাদুঘরের প্রধান মিলনায়তন ও কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তন, কেন্দ্রীয় গণগ্রন্থাগারের শওকত ওসমান স্মৃতি মিলনায়তন, শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালা ও নৃত্যশালা মিলনায়তন, আলিয়ঁস ফ্রঁসেজ মিলনায়তন, মধুমিতা সিনেমা হল ও বসুন্ধরা সিটি স্টার সিনেপ্লেক্স। এর মধ্যে জাতীয় জাদুঘরের প্রধান মিলনায়তন, গণগ্রন্থাগারের শওকত ওসমান স্মৃতি মিলনায়তন, মধুমিতা সিনেমা হল ও স্টার সিনেপ্লেক্সে দর্শনীর বিনিময়ে ছবি দেখা যাবে। বাকি ভেন্যুগুলোয় বিনা মূল্যে ছবি দেখা যাবে। এ ছাড়া জাতীয় জাদুঘরের প্রধান মিলনায়তন ও কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে সকাল ১০টা থেকে বেলা ৩টা পর্যন্ত স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা পরিচয়পত্র দেখিয়ে বিনা দর্শনীতে ছবি দেখতে পারবে।

এবারের বাংলাদেশ প্যানোরমা বিভাগে দেখানো হচ্ছে এন রাশেদ চৌধুরী পরিচালিত মুক্তি প্রতীক্ষিত ছবি ‘চন্দ্রাবতী কথা’, আশরাফ শিশিরের বহুল আলোচিত চলচ্চিত্র ‘আমরা একটি সিনেমা বানাব’, অরুণ চৌধুরীর ‘মায়াবতী’, প্রদীপ ঘোষের ‘শাটল ট্রেন’, ফরিদ আহমেদের ‘টিউনস অব নস্টালজিয়া’, মাসুদ পথিকের ‘মায়া’, প্রসূন রহমানের ‘নিগ্রহকাল’ এবং তানিম রহমানের ‘ন ডরাই’।

উৎসব আয়োজকেরা জানিয়েছেন, ছবিগুলো কেন্দ্রীয় গণগ্রন্থাগারের শওকত ওসমান মিলনায়তনে প্রতিদিন সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় দেখানো হয়। রেইনবো চলচ্চিত্র সংসদ ১৯৭৭ সাল থেকে বাংলাদেশে চলচ্চিত্র সংসদ আন্দোলনে সংশ্লিষ্ট থেকে সৎ চলচ্চিত্র প্রদর্শন সংস্কৃতি বিকাশে বলিষ্ঠ ভূমিকা রেখে চলেছে। এই আন্দোলনের অংশ হিসেবে ১৯৯২ সাল থেকে অনুষ্ঠিত হচ্ছে ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব।


মিডিয়া গসিপ এর সর্বশেষ খবর

মিডিয়া গসিপ - এর সব খবর