ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২১ জানুয়ারি ২০২১, ৮ মাঘ ১৪২৭

জাতীয় দলে ফিরতে টি-টোয়েন্টিতে চোখ সাব্বিরের

২০২০ নভেম্বর ২২ ১৮:২৭:১৬
জাতীয় দলে ফিরতে টি-টোয়েন্টিতে চোখ সাব্বিরের

সাব্বির রহমান রোমান সবশেষ জাতীয় দলের জার্সিতে খেলেছেন গেল বছরের সেপ্টেম্বরে, চট্টগ্রামে, ত্রিদেশীয় সিরিজে আফগানদের বিপক্ষে। এরপর নভেম্বরে সিরিজ খেলতে ভারত গেল টিম বাংলাদেশ, চলতি বছরের জানুয়ারিতে পাকিস্তান সফর ও ফেব্রুয়ারিতে টাইগারদের বিপক্ষে পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলতে বাংলাদেশ সফরে এল

জিম্বাবুয়ে। কিন্তু এর একটিতেও দলে জায়গা হয়নি তাঁর। বাজে পারফরম্যান্সের দায়ে টাইগার টিম ম্যানেজমেন্টের সিস্টেমেও তিনি এখন নেই, বাদ পড়েছেন নিগুঢ় মর্ম থেকে। উদ্ভুত পরিস্থিতিতে জাতীয় দলের রাডারে ফিরতে আসন্ন বঙ্গবন্ধ টি-টোয়েন্টির দিকে দৃষ্টি নিবদ্ধ করেছেন এই ড্যাশিং ব্যাটসম্যান।

মাঠের বাইরের ঘটনাপুঞ্জিতে গায়ে তার ‘ব্যাড বয়’র তকমা কিন্তু নন্দিত অজি অফ স্পিনার নাথান লায়নের চোখে সাব্বির রহমানের ব্যাটিং আগ্রাসন বিরাট কোহলির মতোই। ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরে চট্টগ্রামে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টে নাথান স্পিন ঘূর্ণিতে প্রায় ধ্বংসস্তুপে পরিণত হওয়া বাংলাদেশের ত্রাতা হিসেবে সাব্বিরের ৬৬ রানের ইনিংসটি দেখে জনাকীর্ণ সংবাদ সম্মেলনে নাথান তাঁর মধ্যে আরেক কোহলিকে দেখেছিলেন। আর মাশরাফি বিন মুর্ত্তজার চোখে তিনি দেশ সেরা আগ্রাসী ব্যাটসম্যান। তাতে তিনি হয়ে উঠেছিলেন লাল সবুজের সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটের ক্রিকেটের নিয়মিত মুখ।

কিন্তু লম্বা একটি সময় সেই সাব্বিরকে দেখা যায়নি। জাতীয় দলের নিয়মিত হওয়া সত্বেও ব্যাটিং আগ্রাসনে ছোটাতে পারেননি রানের ফলগুধারা। চওড়া হাসি দূরে থাক স্মিত হাস্যেও তার ব্যাটে হাসেনি। কখনো সখনো হেসেছে সত্যি কিন্তু তাতে কাজের কিছুই হয়নি। পরিণামে যা হবার তাই হয়েছে। গেল বছরের জুলাইয়ে শ্রীলঙ্কা সিরিজ খেলে এসে সেই যে ওয়ানডে দল থেকে বাদ পড়লেন, আজও ফিরতে পারেননি। টি-টোয়েন্টিতেও সব শেষ খেলেছেন গেল বছর (সেপ্টেম্বর ২০১৯, ট্রাইনেশন)।

তবে হাল ছাড়তে চাইছেন না সাব্বির। বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি দিয়ে জাতীয় দলের হারানো জায়গা পুনরুদ্ধার করতে চোয়ালবদ্ধ তিনি। এখানে নজরকাড়া পাফরম্যান্স দেখিয়ে কক্ষপথে ফিরতে চাইছেন কক্ষচ্যুত এই টাইগার।

রোববার (২২ নভেম্বর) মিরপুর জাতীয় ক্রিকেট একাডেমিতে অনুশীলন শেষে একথা জানান বেক্সিমকো ঢাকার এই ব্যাটসম্যান।

সাব্বির বলেন, ‘অবশ্যই, এই টুর্নামেন্টের জন্য আমরা সবাই, সব প্লেয়াররাই অপেক্ষা করছিলাম। এবং যারা যারা বিপিএল বা প্রিমিয়ার লিগ খেলি, আমরা যারা প্রথম শ্রেণির টুর্নামেন্ট খেলি, এ ধরনের টুর্নামেন্ট একজন খেলোয়াড় বা সবার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। একই সঙ্গে যারা যারা জাতীয় দলে নেই তাদের জন্য ফেরার একটা বড় সুযোগ থাকে।’

বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি সামনে রেখে প্রস্তুতিটা সাব্বির ভালোই নিয়েছেন। অক্টোবরে প্রেসিডেন্ট’স কাপ শেষে যে ক’দিন সময় হাতে ছিল কঠোর পরিশ্রমে কাটিয়েছেন। এবার মাঠের লড়াইয়ে নামতে প্রস্তুত তিনি। শুধু তাই নয় ব্যাটিংয়ে সাধারণত লোয়ার মিডল অর্ডারে নামলেও টি-টোয়েন্টি কাপে দলের হয়ে প্রয়োজনে ওপেনিংয়েও আপত্তি নেই সাব্বিরের।

‘আমি চেষ্টা করেছি যতদিন আমি রাজশাহী ছিলাম, ২০ দিন বা ২৫ দিন ওয়েল প্র্যাকটিস করেছিলাম। সেন্টার উইকেটে ব্যাটিংয়ের সুযোগ পেয়েছিলাম। যেটা আমার ব্যাটিংয়ে দরকার, যেটাতে আমার ব্যাটিং করার সুযোগ হয়েছে, আমি ব্যাটিং করতে চেষ্টা করেছি। দেখা যাক কি হয় আরকি। দল যেখানে চাইবে আমাকে, ওপেন করতে বা ওয়ান ডাউনে, সাতে বা ছয়ে দল যেখানে চাইবে, সেখানে ব্যাটিং করতে রাজি আমি।’

২৪ নভেম্বর পর্দা উঠছে ৫ দলের টুর্নামেন্ট বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপের। উদ্বোধনী ম্যাচে মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহীর মুখোমুখি হবে বেক্সিমকো ঢাকা।


খেলাধুলা এর সর্বশেষ খবর

খেলাধুলা - এর সব খবর