ঢাকা, সোমবার, ২৩ নভেম্বর ২০২০, ৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

একে অপরকে জড়িয়ে ধরেছি পরম ভালোবাসায়

২০২০ অক্টোবর ১৮ ১৬:৩০:২০
একে অপরকে জড়িয়ে ধরেছি পরম ভালোবাসায়

বাংলা গানের কিংবদন্তি শিল্পী আইয়ুব বাচ্চুর শূন্যতা কখনোই পূরণ হবে না। দিনের পর দিন আমরা একসঙ্গে গান করেছি স্টেজে, অ্যালবামে। সুখ-দুঃখ ভাগাভাগিও করেছি দু’জন। একসঙ্গে প্রচুর দেশ-বিদেশে ঘুরেছি। আমাদের পরিচয় ১৯৮০ সালের শুরুর দিকে। দীর্ঘ পথচলায় আমাদের অনেক স্মৃতি জমে

আছে। সেসব স্মৃতি আজও মনে আঁচড় কাটে।

উনি অত্যন্ত উদার মনের মানুষ ছিলেন। তার মধ্যে প্রচণ্ড রসাত্মবোধ ছিল। সংগীতের পথচলায় দু’জনের মধ্যে অসংখ্য স্মৃতি জমে আছে। ওনার সঙ্গে আমার যে সম্পর্কটা, সেটা আসলে বলে বোঝানো যাবে না। কেউ হয়তো জানবেও না আমাদের হৃদয়ে একে অপরের জন্য কতটা জায়গা।

অনেকেই দেখেছেন, আমাদের যখন যেখানে দেখা হয়েছে আমরা একে অপরকে জড়িয়ে ধরেছি পরম ভালোবাসায়। আড্ডায় মেতেছি। গান নিয়ে কত যে আড্ডা আমাদের হয়েছে তার কোন হিসেব নেই। আর সেই আড্ডায় কখন যে সময় চলে গেছে তারও ঠিক-ঠিকানা নেই।

আইয়ুব বাচ্চু অসামান্য প্রতিভাধর এক জাদুকরের নাম। তিনি ভালোবাসায় জড়িয়েছেন বাংলা গানের কোটি কোটি অনুরাগীকে। খুব কাছের একজন বন্ধু হিসেবে আমি জড়িয়ে গেছি তার সঙ্গে গভীর অন্তরঙ্গতায়। সব মিলিয়ে ভালোবেসেছি এই কিংবদন্তিতুল্য শিল্পীকে।

আশির দশকের কথা, লিড গিটারিস্ট হিসেবে ফিলিংস ব্যান্ডের সঙ্গে যুক্ত হন আইয়ুব বাচ্চু। তখন থেকেই আমাদের বন্ধুত্ব। তখনই জেনেছি, সংগীতের জন্য আইয়ু্ব বাচ্চু কতটা নিবেদিতপ্রাণ। তার কাছেই শুনেছিলাম, গিটারের নেশায় এক মঞ্চ থেকে অন্য মঞ্চে কিভাবে তিনি ছুটে গেছেন। তিনি তার গিটারের প্রেমে পড়ার গল্পও শুনিয়েছিলেন বহু মঞ্চে। অনেকবার বলেছেন, গিটার হলো তার তৃতীয় হাত।

যদিও আমাদের এক ব্যান্ডের হয়ে গান করা হয়ে ওঠেনি। কিন্তু একসঙ্গে কাজ করতে গিয়ে আমরা জুটি হিসেবে দর্শক-শ্রোতাদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছিলাম সেই তখন থেকেই। আমাদের এই জুটি অ্যালবাম প্রকাশের মধ্য দিয়েও রেকর্ড গড়ে।

আজ সেই মানুষটি নেই। রয়ে গেছে তার অসংখ্য স্মৃতি। যা আজও আমি একা বয়ে বেড়াচ্ছি। ওপারে ভালো থাকুক প্রিয় এই মানুষটি, সেই দোয়াই করি।


সঙ্গীত এর সর্বশেষ খবর

সঙ্গীত - এর সব খবর