ঢাকা, শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০ আশ্বিন ১৪২৭

ফিরে আসছেন বাবা, মা, দাদা-দাদি

২০২০ আগস্ট ১৪ ১৪:৩০:১১
ফিরে আসছেন বাবা, মা, দাদা-দাদি

বিগত কয়েক বছর থেকে নাটক থেকে হারিয়ে যাচ্ছিল পরিবারকেন্দ্রিক গল্প। সেখানে থাকে না বাবা, মা, দাদা-দাদি, ভাই-বোন, আত্মীয়স্বজন। সমাজের সমসাময়িক ছবিও নাটক থেকে কখন যেন হারিয়ে যেতে বসেছিল। হঠাৎ এবারের ঈদে কিছু নাটক এল যেন সেই

পুরোনো রূপে। বেশ কিছু নাটকে হারিয়ে যাওয়া চরিত্ররা ফিরেছেন আবার। দর্শকও প্রশংসা করেছেন সেসব নাটকের, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তথাকথিত নায়ক-নায়িকা নয়, হৃদয়ছোঁয়া সেসব চরিত্র নিয়ে আলোচনা হয়েছে।

নাট্যাঙ্গনে দীর্ঘদিনের অভিযোগ, নাটকের মান কমছে ধীরে ধীরে। একই লোকেশনেই সীমাবদ্ধ নাটকের গল্প। নেই কোনো বহুমুখী গল্প, কেবল ঘুরেফিরে নায়ক-নায়িকার প্রেম দেখে বিরক্ত ছিলেন টেলিভিশন দর্শকেরা। এসব নিয়ে প্রথম আলো একাধিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। দুই বছর আগে সে রকম একটি প্রতিবেদনে জ্যেষ্ঠ অভিনেত্রী দিলারা জামান বলেছিলেন, ‘দুইটা ছেলে-মেয়ে আর মোবাইল হলেই এখন নাটক হয়ে যায়।’ আরেকটি প্রতিবেদনে আরেক জ্যেষ্ঠ অভিনেতা আবুল হায়াত বলেন, ‘মানুষ পরিবারবিহীন নাটক দেখতে দেখতে ক্লান্ত।’ এবারের ঈদে বেশ কয়েকটি নাটক অসাধারণ কিছু গল্পের মাধ্যমে নানামাত্রিক চরিত্রের উপস্থাপনায়

কিছুটা হলেও যেন ক্লান্তি দূরে করেছে দর্শকের।

এই ঈদে ‘ইতি মা’, ‘মা’, ‘বাবা’, ‘মনের মতি মনের গতি’, ‘ভিক্টিম’, ‘স্বার্থপর’, ‘যে শহরে টাকা উড়ে’, ‘বোধ’সহ একাধিক নাটকে দেখা গেছে অসাধারণ কিছু গল্প। এই নাটকগুলোর গল্পে প্রাধান্য পেয়েছে বাবা-মা, ভাই-বোন আর সমাজের নানা চরিত্রের কাহিনি। একঘেয়ে প্রেমের গল্পের বাইরে ঘুষ, দুর্নীতি, বেকারত্বসহ উঠে এসেছে সমাজের নানা সমস্যা।

অভিনেতা রওনক হাসানের ‘মা’ নাটকের কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করেছেন মনিরা মিঠু। অনবদ্য অভিনয়ের জন্য তাঁর চরিত্রটি বেশ প্রশংসা পেয়েছে। ‘ইতি মা’ নাটকে মায়ের চরিত্রে শিল্পী সরকার অপুকে দর্শক মনে রাখবে। এই নাটকে একজন বখে যাওয়া ছেলের চরিত্রে অভিনয় করেছেন আবীর মোল্লা। এই চরিত্রগুলোর অভিনয় ছিল দর্শকদের আলোচনায়। এই অভিনেতা বলেন, ‘চরিত্র পছন্দ হলে ছোট-বড় কোনো বিষয় না। গল্পে অভিনয়ের জায়গা থাকতে হবে।’

এবার ঈদে আরও প্রশংসা পেয়েছেন অপি করিম, ঈশিতা, আশিষ খন্দকার, রুনা খান, তাসনুভা তিশা, সবুজ, মৌরী সেলিম, অভীদ রেহানসহ অনেকেই। নির্মাতা আশফাক নিপুণ বলেন, ‘প্রায় ৫ বছর ধরে বাজেট এবং নাটকের ভিউয়ের কারণে একটা ট্রেন্ড চালু হয়েছে নাটক থেকে পরিবার বাদ দেওয়ার। কিন্তু ঈদ হলে আমরা সেই পরিবারের কাছেই ফিরি। সেই জায়গা থেকে মনে হয়েছে পরিবারের প্রেম নিয়ে নাটক বানানো দরকার।’ ‘ইতি মা’, ‘বোধ’, ‘যে শহরে টাকা উড়ে’ নাটকগুলোর প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান লাইভ টেকনোলজিস। প্রতিষ্ঠানের পরিচালক তামজীদ অতুল বলেন, ‘দেশের সংস্কৃতি নিয়ে কাজ করা ছাড়া মানসিকভাবে শান্তি পাচ্ছিলাম না। সেই বোধ

থেকেই চেয়েছি একসঙ্গে আমরা এই ধরনের অনেকগুলো নাটক বানাব। যাতে পরিবর্তন আসে। পরিবার নিয়ে গল্পগুলো পর্দায় ধরা দিক।’

বেশ কয়েক বছর আগে নাট্যকার মাসুম রেজা অভিযোগ করেছিলেন, নাটক একটি চক্রের মধ্যে পড়ে গেছে। তিনি এবার জানালেন, ‘বাজেট কমানোর জন্য নাটকের চরিত্র ছেঁটে ফেলা হচ্ছে। দর্শক গল্পে পরিবার দেখতে চায়। এটা বাদ দেওয়ার কোনো উপায় নেই। বিভিন্ন কারণে যেটা হচ্ছিল না, সেটা এই ঈদ থেকে হয়তো কিছুটা হলেও পাওয়া যাচ্ছে।’

মানসম্মত নাটক হচ্ছে না—দীর্ঘদিনের এই অভিযোগ হয়তো ধীরে ধীরে ঘুচতে যাচ্ছে নাট্যাঙ্গনে। ড্রয়িংরুম বিনোদনের অন্যতম মাধ্যম টেলিভিশনের সামনে ফের জমতে শুরু করবে দর্শক, নাটকের চরিত্রদের হাসি-কান্নায় তাঁরাও হবেন একাকার।


মিডিয়া গসিপ এর সর্বশেষ খবর

মিডিয়া গসিপ - এর সব খবর