ঢাকা, শনিবার, ১১ জুলাই ২০২০, ২৭ আষাঢ় ১৪২৭

শেষমেষ সাকিবের কথা স্বীকার করলো কলকাতা নাইট রাইডার্স

২০২০ জুন ০৩ ১৬:১১:১৭
শেষমেষ সাকিবের কথা স্বীকার করলো কলকাতা নাইট রাইডার্স

২০১১ সালে কলকাতা নাইট রাইডার্স এর জার্সি গায়ে দেন সাকিব আল হাসান। এরপর টানা ৭ মৌসুম কলকাতার হয়ে খেলেছেন শাকিব। যার মধ্যে একাধিকবার চ্যাম্পিয়ন হয়েছে তার দল।

তাইতো শাকিবের অবদান ভোলার নয় কলকাতা নাইট রাইডার্স এর। সাকিব তাদের কাছে সব সময় একজন সুপারস্টার ক্রিকেটার এমনটাই বললেন কলকাতা নাইট রাইডার্স এর প্রধান নির্বাহী ভেনকি মাইশো।

ক্রীড়াভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ‘পাওয়ারপ্লে কমিউনিকেশন্স’ সরাসরি আড্ডায় ভেনকি মাইশো জানান, তারা বড় নামের দিকে নয়; বরং কার্যকর খেলোয়াড় দলে ভেড়ানোর পরিকল্পনা করেছিলেন। আর তার সেই পরিকল্পনায় বাংলাদেশি অলরাউন্ডোর ছিলেন সুপারস্টার।

মাইশোর বলেন, ‘আমি বলেছিলাম, আমরা বড় নামের দিকে ছুটবো না। খেলোয়াড় বাছাইয়ের সময় আামরা সবসময় ব্র্যান্ড ধরে রাখব। ২০১১ সালে আমাদের গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় ছিলেন সাকিব আল হাসান। আমার কাছে সাকিব সুপারস্টার। কাজের প্রতি তার প্যাশন, তার বিনয় ও ধারাবাহিকভাবে পারফর্ম করার একজন উদাহরণ হলেন সাকিব।’

মাইশোর সাকিবের অসাধারণ ক্রিকেট মস্তিষ্ক ও ব্যক্তিত্বের জন্য তাকে বিশেষ একটা নাম দিয়েছিলেন এবং সেই নামেই সবসময় ডাকতেন। মাইশোর জানান, তিনি সাকিবকে ডাকেন ‘সাবিস্টার’ বলে।

মাইশোরের ভাষায়, ‘সাকিবের সাখে অনেক স্মৃতি আছে। ও একজন অসাধারণ মানুষ। আমি সাকিবকে একটা বিশেষ ডাকনাম দিয়েছিলাম এবং আমি ওকে সেই নামেই ডাকি, সাবিস্টার। আমি যখন তাকে খুদে বার্তা পাঠাই তখনও আমি সাবিস্টার লিখি। ও কেকেআরের সাথে দারুণ সম্পর্ক গড়ে তুলেছিল। ক্রিকেট মাঠেও সে আমাদের জন্য অনেক কিছু করেছে।’

মাইশোরকে এক মজার প্রশ্নের সম্মুখীন করা হয়। তাকে জিজ্ঞেস করা হয়, সিনেমা বানালে সেখানে তিনি নায়ক হিসেবে বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের মধ্যে কাকে রাখবেন- সাকিব, তামিম নাকি মাশরাফি। এই প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে তিনি আবারও স্মরণ করান, সাকিব তাদের কাছে সুপারস্টার।

কেকেআরের প্রধান নির্বাহীর ভাষায়, ‘কোনো প্রতিযোগিতা নেই, সাকিবকে নিবো। সাকিব আমাদের সুপারস্টার। তাই তাকেই নিতে হবে। বাকি দুইজনও ভালো। মাশরাফিও এক আসরে খেলেছিল কেকেআরে। আর আমরা জানি, তামিম একজনদারুণ ব্যাটসম্যান। কিন্তু আমি সাকিবের পক্ষেই যাব।’


খেলাধুলা এর সর্বশেষ খবর

খেলাধুলা - এর সব খবর