ঢাকা, রবিবার, ৫ জুলাই ২০২০, ২১ আষাঢ় ১৪২৭

করোনার ‘হটস্পট’এখন রাজশাহীর তানোর

২০২০ মে ২৮ ১৮:৫৬:০৩
করোনার ‘হটস্পট’এখন রাজশাহীর তানোর

রাজশাহী জেলার তানোর উপজেলা এখন সবচেয়ে বেশি করোনায় আক্রান্ত রোগী আছেন। তানোর উপজেলায় বর্তমানে সর্বোচ্চ ১০ জন করোনা রোগী আছেন হোম আইসোলেশনে। দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে রাজশাহীর আরেক উপজেলা পুঠিয়া।

পুঠিয়া উপজেলায় করোনা রোগীর সংখ্যা ৯ জন। গত ১২ এপ্রিল এ উপজেলাতেই রাজশাহীর বিভাগের মধ্যে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। রাজশাহীর সিভিল সার্জন ডা. এনামুল হক এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

বৃহস্পতিবার সকালে তিনি জানান, রাজশাহীতে এ পর্যন্ত ৪৬ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এর মধ্যে দুইজন মারা গেছেন। আর সুস্থ হয়েছেন ১১ জন। এখনও চিকিৎসাধীন ৩৫ জন। তানোরে সর্বোচ্চ রোগীর সংখ্যা ১০ জন। তবে এ উপজেলায় কেউ মারা যাননি। রাজশাহী সিটি করপোরেশন এলাকায় শনাক্ত হয়েছেন ৮ জন। এছাড়া বাঘা উপজেলায় ৫, দুর্গাপুরে ৩, বাগমারায় ৩, মোহনপুরে ৬ এবং পবায় ২ জন শনাক্ত হয়েছেন।

সিভিল সার্জনের কার্যালয়ের হিসাব অনুযায়ী, জেলার গোদাগাড়ী ও চারঘাট উপজেলা এখনও করোনামুক্ত রয়েছে। করোনা ছড়িয়ে পড়া রোধে এ পর্যন্ত চারঘাটে ১১৮ এবং গোদাগাড়ীতে ৬০ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। চারঘাটে এখন কেউ কোয়ারেন্টাইনে নেই। তবে গোদাগাড়ীতে এখনও ২ জন হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন।

তানোর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. রোজি আরা খাতুন জানান, তানোর উপজেলায় প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় উপজেলার বাধাইড় ইউনিয়নের হাপানিয়া দোগাছী গ্রামে। ভারত ফেরত এক যুবক। এ পর্যন্ত ১০জন করোনা রোগী এ উপজেলায় শনাক্ত হয়েছে। তবে এদের মধ্যে তানোর থানার দুই স্টাফ সুস্থ্য হয়ে হাসপাতাল থেকে এসেছেন। করোনা আক্রান্তের প্রায় সবাই ঢাকা ফেরত শ্রমিক বলে জানিয়েছেন এই কর্মকর্তা।

সিভিল সার্জন জানান, রাজশাহী জেলা ও মহানগরে এ পর্যন্ত ১ হাজার ৯০৬ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। এর মধ্যে ১৪ দিন পূর্ণ হওয়ায় ১ হাজার ৮১৭ জন ছাড়পত্র পেয়েছেন। এখনও ৮৯ জন হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন। এদের মধ্যে ৫৭ জনকে গত ২৪ ঘণ্টায় হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। এদের তিনজনের বাড়ি রাজশাহী মহানগরীতে। বাকি ৫৪ জনের বাড়ি বাঘা।


জাতীয় এর সর্বশেষ খবর

জাতীয় - এর সব খবর