ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৮ মে ২০২০, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

ঈদ বোনাস পেয়ে তাঁদের চোখে জল 

২০২০ মে ২২ ১৫:২১:৪৩
ঈদ বোনাস পেয়ে তাঁদের চোখে জল 

চলচ্চিত্রে দাপটের সঙ্গে অভিনয় করেছেন, অসুস্থ হয়ে এখন অনেকেই কষ্টে জীবনযাপন করছেন। করোনাভাইরাসের প্রকোপে শুটিং বন্ধ হওয়ায় সমস্যায় পড়েছেন নিম্ন আয়ের শিল্পীরা। আসন্ন ঈদকে কেন্দ্র করে শিল্পী সমিতির পক্ষ থেকে দেওয়া হচ্ছে ঈদ বোনাস। গতকাল বোনাসের টাকা সংগ্রহ করতে গিয়ে

অনেকেই চোখের জল ফেলেছেন।

ঢাকাই চলচ্চিত্রের একসময়ের সাড়াজাগানো খল অভিনেতা ড্যানিরাজ। এ পর্যন্ত দুই শতাধিক চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। তবে দুই বছর ধরে হার্টের অসুস্থতায় ভুগছেন। যে কারণে তেমন একটা কাজ করতে পারছেন না। গতকাল চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি থেকে ঈদ বোনাস নেওয়ার সময় কেঁদে ফেলেন তিনি।

মঞ্চ, টেলিভিশন, বেতার নাটকে অভিনয় করলেও চলচ্চিত্রাভিনেতা হিসেবেই পরিচিতি পেয়েছেন জামিলুর রহমান শাখা। এখন পর্যন্ত ছয় শতাধিক চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। দীর্ঘদিন ধরে নানা রোগে ভুগছেন এই অভিনেতা। সমিতি থেকে ঈদের বোনাস যেন প্রচণ্ড রোদে একপশলা বৃষ্টির মতো।

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত অভিনেত্রী খালেদা আক্তার কল্পনা পাঁচ শতাধিক চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। বর্ণিল ক্যারিয়ারে শতাধিক নাটকেও অভিনয় করেছেন। জীবন-সায়াহ্নে এসে গুণী এই অভিনেত্রী এখন বেকার। কিছু টিভি অনুষ্ঠান ছাড়া তাঁর দেখা মেলে না খুব একটা। চোখের সমস্যা ছিল, এখন ভালো আছেন, তবে চিকিৎসা চালিয়ে যেতে হবে।

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ঈদ বোনাস পেয়ে আবেগে আপ্লুত কল্পনা। তাঁর মতো অসংখ্য শিল্পী রয়েছেন, যাঁরা করোনার প্রকোপ শুরু হওয়ার আগে থেকে নানা সমস্যায় জর্জরিত। এই বোনাসই যেন তাঁদের ঈদের আনন্দ!

খালেদা আক্তার কল্পনা এনটিভি অনলাইনকে বলেন, ‘এখন তো আমাদের খবর খুব একটা কেউ নেয় না। শিল্পী সমিতি থেকে ঈদের বোনাস পাঠিয়েছে। খামটা দেখে আবেগে চোখে পানি চলে এসেছিল। তবে কি তারা আমাকে ভোলেনি। আমি যে খুব একটা খারাপ আছি সেটা নয়, তার পরও করোনার এই সময় সবার কাজ বন্ধ, ছেলেটাও বাসায় বসে আছে। সমিতির এই বোনাস আমার কাছে শিল্পী হিসেবে সম্মান। বর্তমান সমিতি সময়োপযোগী কাজ করছে। এদের জন্য দোয়া রইল।’

খল অভিনেতা ড্যানিরাজ বলেন, ‘সারা জীবন খল চরিত্রে অভিনয় করেছি। পর্দায় অনেক দাপট দেখিয়েছি। নিজেকে কখনো অসহায় মনে হয়নি। তবে অসুস্থতা নিজেকে অনেকটাই অসহায় করে দিয়েছে। ঈদের সময় সমিতি থেকে বোনাস পাব, এটা কখনো চিন্তাও করিনি। চোখের জল ধরে রাখতে পারিনি। যাঁদের কল্যাণে আজ বোনাস পেয়েছি, তাঁদের সৃষ্টিকর্তা বাঁচিয়ে রাখুন; আমাদের মতো মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য হলেও—এর চেয়ে বেশি কিছু বলার নেই।’

জামিলুর রহমান শাখা বলেন, ‘অনেক দিন ধরে কাজ করছি। অবশ্য এখন আর কাজ করার মতো তেমন শক্তি নেই। বয়স হয়েছে, শরীরও তেমন ভালো থাকে না। গতকাল শিল্পী সমিতি থেকে ঈদের বোনাস পাঠিয়েছে। অনেকক্ষণ খামটার দিকে তাকিয়ে ছিলাম। মনের অজান্তেই চোখের কোণে পানি চলে এলো। একসময় প্রতিদিন কাজ শেষ করে এমন খাম নিয়ে বাসায় ফিরতাম। তবে করোনার প্রকোপে জনজীবন যেখানে স্তব্ধ, এমন সময় কাজ না করেও ঈদের বোনাস। জানি না কী ভাষা দিয়ে এঁদের ধন্যবাদ দেব। সৃষ্টিকর্তা এঁদের মঙ্গল করুন।’

এমন অসচ্ছল শিল্পী রয়েছেন তিন শতাধিক, যাঁদের জন্য ঈদ বোনাস দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি। ঈদ বোনাসের জন্য গঠন করা হয়েছে বোনাস ফান্ড। এই ফান্ডে অর্থ দিয়ে সহযোগিতা করেছেন জনপ্রিয় অভিনেতা মনোয়ার হোসেন ডিপজল, চ্যানেল আইয়ের চেয়ারম্যান ফরিদুর রেজা সাগর, কণ্ঠশিল্পী কনকচাঁপা, নায়িকা শিল্পী, জনপ্রিয় অভিনেতা মিশা সওদাগর ও নায়ক জায়েদ খান। এ ছাড়া সহযোগিতা করেছেন অভিনেতা সজীব তাহের, লন্ডনপ্রবাসী ব্যবসায়ী সেলিম চৌধুরী।


জাতীয় এর সর্বশেষ খবর

জাতীয় - এর সব খবর