ঢাকা, শুক্রবার, ২৯ মে ২০২০, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

‘ফিরতি পথে অধিক জমায়েত হয়ে বিপদ ডেকে আনবেন না’

২০২০ মে ২২ ১৪:২৮:৪৮
‘ফিরতি পথে অধিক জমায়েত হয়ে বিপদ ডেকে আনবেন না’

র‌্যাব মহাপরিচালক চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন বলেছেন, এবার পবিত্র ঈদুল-ফিতরের ছুটি শেষে গ্রাম থেকে ফিরতি পথে অধিক যাত্রী একসঙ্গে জমায়েত করবেন না। জমায়েতে বিপদ ডেকে আনবেন না, নিজের, পরিবার ও সন্তানদের কথা ভেবে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন। আসন্ন পবিত্র ঈদুল-ফিতর ও

চলমান করোনা পরিস্থিতির প্রেক্ষাপটে র‌্যাবের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে অনলাইনে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এ কথা বলেন তিনি।

শুক্রবার (২২ মে) বেলা সোয়া ১১টায় শুরু হওয়া অনলাইন মতবিনিময়কালে র‌্যাব মহাপরিচালক বলেন, সরকারি নির্দেশনা মতে ব্যক্তিগত গাড়িতে ঈদে বাড়ি যাওয়া যাবে। তবে কোনো গণপরিবহন চলবে না। এর আগে সবকিছুই যখন বন্ধ ছিল সেসময় অনেকেই নানা প্রক্রিয়া আর তৎপরতায় বাড়ি গেছেন।ঈদের ছুটি শেষে ফেরার সময় অনুরোধ করবো দয়া করে জমায়েত হবেন না। অধিক যাত্রী একসঙ্গে ফিরবেন না। এতে বিপদ। নিজের পরিবার, সন্তানের কথা ভেবে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলুন। র‌্যাব ফিরতি যাত্রা কঠোরভাবে মনিটর করবে।

দিনকে দিন করোনা পরিস্থিতি খারাপের দিকে যাচ্ছে এমন অবস্থায় কারফিউয়ের মত নির্দেশনার পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে কিনা জানতে চাইলে র‌্যাব মহাপরিচালক বলেন, আমরা মনে করি না সে ধরনের কোনো পরিবেশ পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। বরং সরকার মানুষের সুবিধার জন্য সব ধরনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।এরমধ্যে গণপরিবহন বাদে ব্যক্তিগত গাড়িতে বাড়িতে যাওয়ার সিদ্ধান্তও মানুষের সুবিধার চিন্তায়। সরকারের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে কাজ করছে র‌্যাব।

করোনা বিষয়ক গুজব প্রতিরোধে র‌্যাবের ভার্চুয়াল পেট্রলিং অব্যাহত রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, এ পর্যন্ত গুজব ছড়ানোর কারণে বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গুজব সৃষ্টিকারী সাইট নজরদারিতে রয়েছে।

তিনি বলেন, অনেকেই না বুঝে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কোনো তথ্য দেখলেই বা বিভিন্ন কনটেন্টে না বুঝে, সত্যতা যাচাই না করেই লাইক-শেয়ার ও কমেন্টস করছেন। পরবর্তীতে দেখা যায় ওই তথ্য বা কনটেন্ট মিথ্যা।

সাধারণ নাগরিকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, কোনো তথ্যে কমেন্টস শেয়ার বা লাইক দেবার আগে যাচাই করুন। কারণ অনেকেই কোনো ঘটনাকে অতিরঞ্জিত করে বা মিথ্যা প্রচারের জন্য গুজব প্রচার করে। না বুঝেও ওইসব কনটেন্টে কমেন্টস, শেয়ার বা লাইক দেয়ার কারণে আইনের আওতায় আসার মতো পরিস্থিতিতে পড়েন। তাই অনুরোধ, না বুঝে কেউ এ ধরনের কর্মকাণ্ড করবেন না। প্রয়োজনে যে কোনো তথ্য যাচাইয়ে র‌্যাব সাইবার ভেরিফিকেশন সেন্টারের সহায়তা নেয়ার কথাও বলেন তিনি।

করোনার মধ্যে মাদকের হোম ডেলিভারি ও মাদক ব্যবসায়ীদের অপতৎপরতা বৃদ্ধি সম্পর্কে জানতে চাইলে র‌্যাব মহাপরিচালক বলেন, গণপরিবহন বন্ধ থাকায় মাদক ব্যবসায়ীদের তুলনামূলক অপতৎপরতা কমেছে। তবে তাদের অনেকেই কৌশলে জরুরি সেবা ও পণ্যবাহী যানবাহনের মাদক পরিবহনের চেষ্টা করছেন।

র‌্যাবের প্রত্যেকটি ব্যাটালিয়ন মাদক বিরোধী অভিযান ও নজরদারি বৃদ্ধি করেছে। চেকপোস্ট টহল ডিউটি বাড়ানো হয়েছে। করোনাকালে আমরা এখন পর্যন্ত এই ৯ লাখ ৮২ হাজার পিস ইয়াবা, ৩২ হাজার বোতল ফেনসিডিলসহ মোট ৫৫ কোটি ৩২ লাখ টাকার মাদকদ্রব্য জব্দ করেছি।


জাতীয় এর সর্বশেষ খবর

জাতীয় - এর সব খবর