ঢাকা, রবিবার, ৯ আগস্ট ২০২০, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৭

আম্পান: মূল ঝড়টি বেরিয়ে যাবে বাংলাদেশ ঘেঁষে

২০২০ মে ২০ ২২:০১:৩৩
আম্পান: মূল ঝড়টি বেরিয়ে যাবে বাংলাদেশ ঘেঁষে

কলকাতাসহ ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন এলাকায় তাণ্ডব চালিয়ে যাচ্ছে ঘূর্ণিঝড় আম্পান। তবে একটু একটু করে বাংলাদেশের দিকে এগিয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড়টি। আবহাওয়া অধিদফতরের তথ্য বলছে, আর কয়েকঘণ্টার মধ্যেই ঘূর্ণিঝড় আম্পানের কেন্দ্রস্থল বাংলাদেশে প্রবেশ করবে। ঝড়টি মধ্যরাতে বাংলাদেশের সীমা অতিক্রম করবে।

তবে আবহাওয়া বিষয়ক একাধিক ওয়েবসাইটের তথ্য বলছে, ঘূর্ণিঝড়টির কারণে খুলনা-সাতক্ষীরা এলাকায় ব্যাপক প্রভাব পড়লেও এটি মধ্যরাত পেরিয়ে কোনো একসময় মেহেরপুর বা কুষ্টিয়া জেলা দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করবে। তখন এর গতি অনেকটাই কমে আসবে।

আবার আগে থেকেই এর গতি কমে এলে বাংলাদেশে প্রবেশ করতে করতে হয়তো ভোর হয়ে যাবে। সেক্ষেত্রে এটি নিম্নচাপ আকারে প্রবেশ করতে পারে রাজশাহী অঞ্চল দিয়ে। অর্থাৎ আম্পান ঘূর্ণিঝড়ের মূল অংশটি বাংলাদেশে প্রবেশ নাও করতে পারে! সেক্ষেত্রেও ঝোড়ো হাওয়ার কারণে যথেষ্টই ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে সংশ্লিষ্ট এলাকাগুলো। আম্পান আপডেট

ভারতীয় গণমাধ্যমগুলো বলছে, আম্পান এখন ঘণ্টায় ১১০ কিলোমিটার বেগে তাণ্ডব চালাচ্ছে কলকাতায়। এর প্রভাবে শহরটির অবস্থা একেবারেই নাজুক হয়ে পড়েছে। বড় ভবনগুলোর দরজা-জানালা বাতাসের তোড়ে ভেঙে যাচ্ছে। স্থলভাগে প্রবেশের সময় প্রদেশটির উপকূলীয় অঞ্চলেও এটি অনেক ঘর-বাড়ি ভেঙে দিয়ে এসেছে। তবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ এখনই নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম আনন্দবাজার বলছে, সেখানে প্রচুর বৃষ্টি আর প্রবল বাতাস বইছে। ২৪ পরগনা ও মেদিনীপুর জেলায় সবচেয়ে বেশি তাণ্ডব চলেছে বলে জানা গেছে। কলকাতার প্রতিটি রাস্তার গাছপালা ভেঙে পেড়েছে। এতে করে কয়েকজনের হতাহতের খবরও পাওয়া গেছে। আম্পান: লাইভ আপডেট

এদিকে সুন্দরবনের একাংশ, মোংলা ও সাতক্ষীরা অঞ্চলেও আম্পানের ব্যাপক প্রভাব পড়েছে। তীব্র ঝড়ে গাছ ভেঙে পড়লে এক গাছের চাপায় এক বৃদ্ধ মারা গেছেন ভোলায়। পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় সাইক্লোন শেল্টারে লোকজনকে নিয়ে আসার প্রচারণা চালাতে গিয়ে নৌকাডুবিতে নিখোঁজ রয়েছেন ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচির (সিপিপি) টিম লিডার শাহ আলম। তবে ঝড়ের মূল অংশ এখনো বাংলাদেশে প্রবেশ করেনি।

আবহাওয়া বিষয়ক ওয়েবসাইট উইন্ডি বলছে, এটি আজ মাঝরাতে মেহেরপুর বা কুষ্টিয়া জেলা দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করতে পারে। তখন ঝড়টি অনেক দুর্বল হয়ে পড়বে। আর যদি এটি প্রবেশ করতে সকাল হয়ে যায়, তাহলে সেটি নিম্নচাপে পরিণত হয়ে রাজশাহী এলাকা দিয়ে ঢুকবে। প্রায় একই ধরনের তথ্য দিচ্ছে সাইক্লোন ডটকমও। সাইটগুলো বলছে, মূল ঝড়টি বাংলাদেশে প্রবেশ করুক আর না করুন, আম্পানের প্রভাবে আগামী দুই থেকে তিন দিন সারাদেশে বৃষ্টিপাত হবে। আর নিম্ন চাপে পরিণত হয়ে গেলেও ঝোড়ো হাওয়া সমূহ ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে।

এদিকে, আম্পানের প্রভাবে বিকেলের পর থেকে খুলনা ও সাতক্ষীরা অঞ্চলে বাতাসের গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় ১৬০ থেকে ১৮০ কিলোমিটার। তবে ঝড়টি পশ্চিমবঙ্গের স্থলভাগে আছড়ে পড়লে এরপর বাতাসের গতিবেগ অনেক কমে এসেছে। সেটি তখন তাণ্ডব চালাতে শুরু করে পশ্চিমবাংলা প্রবেশে। বিশেষ করে দীঘা, সাগরদ্বীপ এলাকায় ঘণ্টায় ১৯০ কিলোমিটার পর্যন্ত গতিতে আম্পান সবকিছু লণ্ডভণ্ড করে দিয়েছে বলে খবর মিলছে।

এর আগে আম্পানের কারণে দেশের সমুদ্রবন্দরগুলোর পাশাপাশি দেশের অভ্যন্তরেও মহাবিপদ সংকেত দেখাতে বলেছে আবহাওয়া অধিদফতর। তাদের সতর্কবার্তায় বলা হয়েছে— যশোর, কুষ্টিয়া, খুলনা, বরিশাল, পটুয়াখালী, নোয়াখালী, কুমিল্লা,

চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, রাজশাহী, পাবনা, বগুড়া, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ, ঢাকা, ফরিদপুর এবং মাদারীপুর অঞ্চলসমূহের ওপর দিয়ে দক্ষিণ, দক্ষিণ-পূর্ব দিক থেকে ঘণ্টায় ৮৯ কিলোমিটার বা তারও বেশি বেগে বৃষ্টি ও বজ্রবৃষ্টিসহ অস্থায়ীভাবে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। তাই এসব এলাকার নদীবন্দরকে ৪ নম্বর মহাবিপদ সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। নদীবন্দরের জন্য এটিই চূড়ান্ত সতকর্তা।

এছাড়া দেশের অন্য অঞ্চলগুলোর ওপর দিয়ে দক্ষিণ, দক্ষিণ-পূর্ব দিক থেকে ঘণ্টায় ৬০ থেকে ৮০ কিলোমিটার বেগে বৃষ্টি বা বজ্রবৃষ্টিসহ অস্থায়ীভাবে দমকা বা ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। তাই এসব এলাকার নদীবন্দরগুলোকে দুই নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।


জাতীয় এর সর্বশেষ খবর

জাতীয় - এর সব খবর