ঢাকা, বুধবার, ২৭ মে ২০২০, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

‘৫৭% বিদুৎকেন্দ্র বসিয়ে রেখে বছরে ভর্তুকি ৯ হাজার কোটি টাকা’

২০২০ মে ২০ ১০:৪২:৪৩
‘৫৭% বিদুৎকেন্দ্র বসিয়ে রেখে বছরে ভর্তুকি ৯ হাজার কোটি টাকা’

ঝর্ণা রায়, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট ঢাকা: ‘বাংলাদেশের মোট বিদ্যুৎকেন্দ্রের ৫৭ শতাংশই অলস পড়ে থাকছে। যার ভাড়া মেটাতে গত বছর সরকারকে ৯ হাজার কোটি টাকা ভুর্তুকি দিতে হয়েছে। করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) মহামারি এই ক্ষতিকে আরও কয়েকগুণ বাড়িয়ে দেবে’— এমন আশঙ্কার তথ্যই জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক প্রতিষ্ঠান

ইনস্টিটিউট ফর এনার্জি ইকোনোমিকস ফিন্যান্সিয়াল অ্যানালিসিস (আইইইএফএ)-এর গবেষণা প্রতিবেদন

যদিও সদ্য প্রকাশিত ‘বাংলাদেশ পাওয়ার রিভিউ ওভার ক্যাপাসিটি, ক্যাপাসিটি পেমেন্ট, সাবসিডিজ অ্যান্ড ট্যারিফ এবং সেপ টু রাইজ ইভেন ফাস্টার’ শিরোনামে গবেষণা প্রতিবেদন নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে বিদ্যুৎ বিভাগ। তাদের বক্তব্য, বাংলাদেশে আপাতদৃষ্টিতে চাহিদার চেয়ে বিদ্যুতের উৎপাদন স্বক্ষমতা বেশি থাকলেও তা প্রয়োজনের তুলনায় বেশি নয়। এই বাড়তি বিদ্যুতকে এনার্জি সিকিউরিটি বলছে সরকার।

সোমবার (১৮ মে) আইইইএফএ তাদের ওয়েবসাইটে বাংলাদেশের বিদ্যুৎ খাত নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করে। সেখানে তারা বলছে, বাংলাদেশে বর্তমানে যে পরিমান বিদ্যুৎ উৎপাদন করছে তার সিংহভাগই ব্যবহার হয় না। প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, বাংলাদেশে চাহিদার তুলনায় বেশি বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। সে কারণে মোট বিদ্যুৎকেন্দ্রের ৪৩ শতাংশ ব্যবহার করা হয়। আর বাকি ৫৭ শতাংশ বিদুৎকেন্দ্র বসিয়ে রেখে ভাড়া দেওয়া হয়। এতে বিদ্যুৎ খাত রাজস্ব হারাচ্ছে। অন্য দিকে এই খাতে ভর্তুকি বাড়ছে। তাই নতুন করে আর বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন না করার সুপারিশ করা হয়েছে ওই গবেষণা প্রতিবেদনে।

এ প্রসঙ্গে বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব ড. সুলতান আহমেদ সারাবাংলাকে বলেন, ‘বর্তমানে দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদনের স্বক্ষমতা ২১ হাজার মেগাওয়াট। এই ২১ হাজার মেগাওয়াট এক জায়গা বা এক প্ল্যান্ট থেকে উৎপাদন হয় না। দেশের বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা কেন্দ্র থেকে জাতীয় গ্রিডে যোগ হয়। করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের আগে দেশে যখন কল-কারখানা সচল ছিল, তখন সর্বোচ্চ ১৫ হাজার পর্যন্ত চাহিদা হতো। এখন করোনাভাইরাসের কারণে ১০ কিংবা ১১ হাজারে নেমেছে।’

তিনি বলেন, ‘হঠাৎ করে যদি এই চাহিদা ২০ হাজারে উঠে যায় তখন কিছুই করার থাকবে না; যদি না এই পরিমাণ বিদ্যুৎ সংরক্ষিত থাকে। এটাকে বলে এনার্জি সিকিউরিটি।’ তিনি ভারত, আমেরিকাসহ উন্নত ও উন্নয়নশীল দেশের উদাহরণ টেনে বলেন, ‘অনেক দেশ রয়েছে যারা চাহিদার চেয়ে তিনগুণ বেশি বিদ্যুৎ উৎপাদন করে থাকে। সেক্ষেত্রে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ খাতে অযথা ব্যয় করছে না। কিংবা কারণ ছাড়া অলসভাবে বিদ্যুৎকেন্দ্র বসিয়ে রেখে ভাড়া গুনছে না।’

ওই আন্তজার্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠানটি আঞ্চলিক দেশগুলোর সঙ্গে পার্থক্য করে তাদের প্রতিবেদন তৈরি করেছে কি না কিংবা কোন পদ্ধতিতে তারা গবেষণা নাকি সমীক্ষা করেছে?— সে প্রশ্ন তুলেছেন বিদ্যুৎ সচিব।

জানা যায়, পিডিবির বাইরে সরকারি- বেসরকারি কোম্পানির বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোর বিদ্যুৎ কেনার জন্য স্বল্প ও দীর্ঘ মেয়াদে চুক্তি করে থাকে। এসব কেন্দ্র থেকে বিদ্যুৎ কিনে নেয় সরকার। আবার উৎপাদনে ব্যবহৃত তেল, গ্যাস, কয়লা ও জ্বালানির মূল্যও দেয় বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড। উৎপাদিত বিদ্যুতের দাম ছাড়াও কেন্দ্র রক্ষণাবেক্ষণের খরচও রাখা হয় সরকারি বরাদ্দে।

জানা গেছে, ছোট ছোট একেকটি বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ভাড়া দিতে হয় বছরে প্রায় একশ কোটি টাকা। ফলে বিদ্যুতের প্রয়োজন না হলেও অযথা কেন্দ্র ভাড়া বাবদ সরকারকে বছরে হাজার কোটি টাকা গুনতে হয়।

এর ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে বিদ্যুৎ সচিব বলেন, ‘যখন বিদেশ থেকে বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশে আসে তখন তারা বিনিয়োগের আগে দেখে আমাদের স্বক্ষমতা কতটুকু। বিশেষ করে বিদ্যুৎ-জ্বালানি ক্ষেত্রে। এখন যদি চাহিদা মোতাবেক বিদ্যুৎ আমরা উৎপাদন না করি তাহলে তো বিনিয়োগকারীরা ভরসা পাবে না। তাছাড়া দেশে একশ অর্থনৈতিক জোন হচ্ছে। তখন বিদ্যুতের চাহিদা অনেক বেশি বেড়ে যাবে। একটা দেশ যখন উন্নয়নের দিকে যেতে থাকে তখন অনেক দিক চিন্তা করেই এগোতে হয়। তবে বর্তমান পদ্ধতি থেকে আস্তে আস্তে আমরা বেরিয়ে আসার চেষ্টা করছি।’

আন্তর্জাতিক সংস্থা আইইইএফ’র প্রতিবেদন আরও বলছে, বাংলাদেশে বিদ্যুতের যে মহাপরিকল্পনা আছে তাতে উৎপাদন ক্ষমতা বাড়াতে আমদানিকৃত কয়লা ও এলএনজির ওপরে জোর দিয়েছে। এ ধরনের পরিকল্পনা অন্যান্য দেশে বিপর্যয় দেখা দিয়েছে। এতে বিদ্যুৎ উৎপাদনের স্বক্ষমতা তলানিতে যাবে। মহাপরিকল্পনা অনুযায়ী বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ হতে থাকলে ২০৩০ সাল নাগাদ বাংলাদেশে বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা প্রকৃত চাহিদার চেয়ে ৫৮ শতাংশ বেশি হবে।

এ বিষয়ে বিদ্যুৎ সচিব বলেন, ‘বিদ্যুতের মহাপরিকল্পনায় আরেক দফা সংশোধনের চিন্তা করা হচ্ছে।’

উল্লেখ্য যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান আইইইএফএ বিদ্যুৎ ও জ্বালানিবিষয়ক গবেষণা করে থাকে। প্রতিষ্ঠানটি এবার বাংলাদেশের বিদ্যুৎ খাতের ওপর ‘বাংলাদেশ পাওয়ার রিভিউ ওভার ক্যাপাসিটি, ক্যাপাসিটি পেমেন্ট, সাবসিডিজ অ্যান্ড ট্যারিফ এবং সেপ টু রাইজ ইভেন ফাস্টার’ শিরোনামে গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।


জাতীয় এর সর্বশেষ খবর

জাতীয় - এর সব খবর