ঢাকা, সোমবার, ১ জুন ২০২০, ১৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

দাঁতব্যথায় ভুগছেন,জেনেনিন ঘরোয়া তিন উপাদানে মুক্তির উপায়

২০২০ এপ্রিল ২৭ ১৫:৩৭:৪১
দাঁতব্যথায় ভুগছেন,জেনেনিন ঘরোয়া তিন উপাদানে মুক্তির উপায়

দাঁতব্যথায় ভুগছেন – ছোট-বড় সবাই দাঁতব্যথার যন্ত্রণায় ভুগে থাকেন। যা খুবই বিরক্তিকর একটি সমস্যা। অনেকেই ওষুধ সেবনের মাধ্যমে এই ব্যথা কমিয়ে রাখেন। যা বেশ সময় সাপেক্ষও হয়ে থাকে।

জানেন কি, দাঁতব্যথার উপসম রয়েছে আপনার ঘরেই। যেগুলো নিমিষেই আপনার দাঁতব্যথা ভালো করে দেবে। কিছু ভেষজ রয়েছে, যেগুলো ব্যথা কমাতে বেশ উপকারী। এগুলোর ব্যবহার দাঁতব্যথা কমাতে প্রাকৃতিকভাবে কাজ করবে। হেলথ ডাইজেস্ট জানিয়েছে দাঁতব্যথা কমাতে তিন ভেষজ উপাদানের কথা। চলুন জেনে নেয়া যাক সেগুলো-

লবঙ্গ

লবঙ্গের মধ্যে রয়েছে অ্যান্টিমাইক্রোবিয়ার উপাদান। এই উপাদান ব্যথা কমাতে কার্যকর। দাঁতব্যথা কমাতেও লবঙ্গের কোনো জুড়ি নেই। ব্যথা কমাতে কয়েকটি লবঙ্গ চিবিয়ে নিন। এতে দ্রুত ব্যথা কমে যাবে।

রসুন

রান্নায় রসুনের ব্যবহার খাবারের স্বাদ দ্বিগুণ বাড়িয়ে দেয়। তাছাড়া রসুনের মধ্যে রয়েছে ব্যথানাশক ও অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল উপাদান। দাঁতব্যথায় রসুন বেটে মাড়িতে লাগিয়ে রাখতে পারেন। এতে ব্যথা কমবে।

পেয়ারা পাতা

পেয়ারা পাতা নানান গুণে পরিপূর্ণ। এর মধ্যে রয়েছে প্রদাহরোধী উপাদান। দাঁতব্যথা কমাতে কিছু পেয়ারার পাতা নিয়ে চিবাতে পারেন। পেয়ারার পাতা অথবা পেয়ারা পাতার রস কয়েক মিনিট মুখে রাখুন। এতে দাঁতব্যথা অনেকটা কমবে।

মশার কামড়ে ফোলাভাব ও যন্ত্রণা থেকে বাঁচতে করণীয়

মশার উপদ্রব যেন বাড়ছেই! বিশেষ করে এই মৌসুমে মশা অনেকটাই বেড়ে যায়। আর তাইতো এই সময় মশাবাহিত বিভিন্ন রোগও বাড়ে। খেয়াল করে দেখেছেন নিশ্চয়, মশা কামড়ালে বিভিন্ন সময় শরীরে লাল হয়ে ফুলে যায়।

সেই সঙ্গে যন্ত্রণা আর চুলকানি হয়ে অনেকের অ্যালার্জিও দেখা দেয়। এর থেকে ত্বকের নানা সমস্যাও হতে পারে। তবে আপনি কিছু প্রাকৃতিক উপাদান ত্বকে ব্যবহারের মাধ্যমে এমন সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন। জেনে নিন সেগুলো সম্পর্কে-

> মশা কামড়ানোর স্থান ফুল গেলে বরফ ব্যবহার করুন। ত্বকের ব্যথা ও জ্বালাপোড়া কমাতে বরফ দ্রুত কাজ করে। এছাড়াও ঠাণ্ডা ব্যাগ বা বরফ-কুচি মশা কামড়ানোর স্থানে পাঁচ মিনিট চেপে ধরে রাখুন। দেখবেন দ্রুত ফোলাভাব কমে যাবে।

> মধুতে রয়েছে প্রাকৃতিক অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও ব্যাক্টেরিয়া ধ্বংসকারী উপাদান। এটা ত্বকের নানা সমস্যা দূর করে থাকে। মশার কামড়ের জ্বালাপোড়া ভাব ও চুলকানি রোধেও মধু কার্যকরী। এক্ষেত্রে সামান্য পরিমাণ মধু আক্রান্ত স্থানে মেখে কিছুক্ষণ পর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

> অ্যালোভেরার রস ত্বকের বিভিন্ন প্রদাহ দূর করে। এতে রয়েছে প্রদাহনাশক উপাদান। যা জ্বালা-পোড়া, ক্ষত ও ফোলাভাব কমাতে সাহায্য করে। মশা কামড়ানোর স্থানে অ্যালোভেরা কেটে সরাসরি ব্যবহার করুন।

> বেকিং সোডা বিভিন্ন কাজে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। জানেন কি? মশার কামড়ের যন্ত্রণা থেকেও বাঁচায় এই উপাদানটি। এজন্য এক চা চামচ বেকিং সোডার সঙ্গে কয়েক ফোঁটা পানি মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে আক্রান্ত স্থানে ব্যবহার করুন।

> এক্ষেত্রে পেঁয়াজও প্রাকৃতিক প্রদাহনাশক হিসেবে কাজ করে। মশা কামড়ানোর পরপরই কয়েক ফোঁটা পেয়াঁজের রস ব্যবহার করলেই জ্বলুনি কমানো যায়। এতে আছে ফাঙ্গাসরোধী উপাদান। যা সংক্রমণের ঝুঁকি কমায়।


স্বাস্থ্য এর সর্বশেষ খবর

স্বাস্থ্য - এর সব খবর