ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৯ এপ্রিল ২০২০, ২৬ চৈত্র ১৪২৬

যেভাবে কাটছে করোনার দিনগুলো

২০২০ মার্চ ২১ ১৫:৫৫:০৭
যেভাবে কাটছে করোনার দিনগুলো

করোনার আতঙ্কে এক প্রকার গৃহবন্দী বিনোদন অঙ্গনের ব্যস্ত তারকারা। ঘরে বসে সময় কাটাচ্ছেন তাঁরা। খুব জরুরি না হলে বাসা থেকে বের হচ্ছেন না কেউই। হইহুল্লোড় করে সময় কাটাতে পছন্দ করেন, এমন তারকারাও সবকিছু থেকে গুটিয়ে নিয়েছেন

নিজেদের। কেউ অনলাইনে ভক্তদের সচেতন করছেন, কেউ দেখছেন সিনেমা, পড়ছেন বই, শুনছেন গান। পরিবারকে সময় দেওয়ার পাশাপাশি যোগব্যায়াম করা ও প্রার্থনার মধ্য দিয়ে মানবজাতির মঙ্গল কামনাও করছেন তাঁরা। সপ্তাহখানেক হলো গুলশানের বাড়ি থেকে একদম বের হচ্ছেন না অভিনেত্রী মৌসুমী। প্রয়োজনে অভিনেতা ওমর সানী বাইরের কাজগুলো সারছেন।

মৌসুমী বলেন, ‘বাধ্য হয়ে আমাদের গৃহবন্দী থাকতে হচ্ছে। অন্য সময় হলে অনেক পরিকল্পনা করা যেত। পরিবারের সবাই মিলে ঘুরতে যাওয়া যেত। কিন্তু এখন তা সম্ভব নয়।’ স্বামী ওমর সানী এবং দুই সন্তান ফারদীন ও ফাইজাকে নিয়ে মৌসুমীর সংসার। করোনার দিনগুলোতে পরিবারকে সময় দিচ্ছেন মৌসুমী, রান্না করে খাওয়াচ্ছেন সবাইকে। ভাইরাসের এই ভয়াবহতায় তাঁর মনটাও ভালো নেই তেমন। নামাজ পড়ে সবার জন্য দোয়া করছেন তিনি। শুটিং না থাকলে বেশ দেরিতে ঘুম থেকে ওঠেন অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী। কিন্তু করোনার এই সময়ে আগের মতো ঘুমাতে পারছেন না তিনি।

উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠার মধ্যে সময় পার করছেন। করোনাভাইরাস নিয়ে মানুষকে সচেতন করতে ফেসবুকে পোস্ট দিচ্ছেন। গতকাল শুক্রবার দুপুরেও ছেলে শুদ্ধকে নিয়ে একটি ভিডিওবার্তা প্রকাশ করেছেন তিনি। কীভাবে সময় কাটছে জানতে চাইলে চঞ্চল চৌধুরী বলেন, ‘টেলিভিশন চালুই রাখছি, খবর দেখছি। সময়টা রিল্যাক্সের নয়। পৃথিবী একটা বিপদের মধ্যে আছে, এ নিয়ে সব সময় দুশ্চিন্তা হচ্ছে। আমার অবস্থান থেকে সবাইকে সচেতন করতে ফেসবুকে স্ট্যাটাস বা ভিডিওবার্তা দিচ্ছি। চারপাশ থেকে পাওয়া সচেতনতামূলক তথ্য সবার মধ্যে ছড়িয়ে দিচ্ছি।

কোনো ক্রিয়েশনের চিন্তা মাথায় নেই।’ শঙ্কিত চঞ্চল জানান, সম্ভাব্য আক্রান্ত অনেক ব্যক্তি নিয়ম মানছেন না। যাঁরা এখনো আক্রান্ত হননি, তাঁদের কী করা উচিত সেটাও অনেকে বুঝতে পারছেন না। তিনি বলেন, ‘একটা পরিবারের ১০ জনের মধ্যে ৯ জন নিয়ম মানল, একজন মানল না। ওই একজনের কারণে অন্যরা আক্রান্ত হবে। আমার পাশের লোকটি যদি সচেতন না হয়, তাহলে আমার সচেতনতা কোনো কাজে আসবে না। দুর্যোগ কাটাতে সবারই সাবধান হওয়া উচিত। ঘরে বসে আমি সেটাই বলার চেষ্টা করছি।’ কী করছেন আরিফিন শুভ? বসুন্ধরা আবাসিকের বাসার কমিউনিটি মিলনায়তনে দৌড়াদৌড়ি করছেন। ঘরে যোগব্যায়ামও করছেন।

এখন আর জিমে যাচ্ছেন না তিনি। শুভ বলেন, ‘দিনে যদি কেউ ২০ থেকে ৩০ মিনিট শরীরচর্চা করতে পারে, তাহলে খুবই ভালো হয়। ব্যস্ত মানুষেরা হঠাৎ করে ঘরে ঢুকে গেলে হতাশা তৈরি হতে পারে। শরীরচর্চা হতাশা কাটিয়ে উঠতে সহায়তা করে।’ ছোট পর্দার ব্যস্ত অভিনেতা আফরান নিশো করোনার আতঙ্কে ১৮ মার্চ থেকে শুটিং বন্ধ করে ঘরে উঠেছেন। নতুন নাটক বা টেলিছবির শুটিং কবে শুরু করবেন সে বিষয়ে কিছু জানা নেই তাঁর। তিনি বলেন,

‘স্ত্রী ও সাড়ে পাঁচ বছরের সন্তানকে সময় দিচ্ছি। প্রয়োজন ছাড়া বের হচ্ছি না। গেম খেলছি, টেলিভিশন দেখছি। এভাবেই সময় কেটে যাচ্ছে।’ অভিনয়শিল্পী মিথিলা ব্র্যাক ইন্টারন্যাশনালের আর্লি চাইল্ডহুড ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রামের প্রধান হিসেবে কর্মরত। করোনার আতঙ্কে বাসায় বসে অফিস করছেন তিনি। আগে অফিসে যেতে পথে অনেক সময় নষ্ট হতো, এখন সেটা হচ্ছে না। তিনি বলেন, ‘আমার প্রকল্পগুলো আফ্রিকার বিভিন্ন দেশে।

এখনকার জরুরি অবস্থায় কীভাবে কী করা যায়, তা নিয়ে পরিকল্পনা করছি। এখন যেহেতু সবাই বাড়িতে, বাচ্চাদের সঙ্গে বাবা-মায়েরা কীভাবে কী করবেন, সেসব নিয়ে সচেতনতা তৈরির পরিকল্পনাও চলছে। এরই মধ্যে ফেসবুকে একটি ভিডিও পোস্ট করেছি।’ অফিসের কাজের পাশাপাশি বাসায় মেয়ের সঙ্গে সময় কাটাচ্ছেন মিথিলা। মেয়ের পড়াশোনা দেখভাল করার পাশাপাশি নিজের পিএইচডির পড়ালেখাও এগিয়ে নিচ্ছেন তিনি।


লাইফ স্টাইল এর সর্বশেষ খবর

লাইফ স্টাইল - এর সব খবর