ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৯ এপ্রিল ২০২০, ২৬ চৈত্র ১৪২৬

মুক্তিযোদ্ধার মায়ের চরিত্রে অভিনয় করেছি

২০২০ ফেব্রুয়ারি ১৯ ০৬:২৮:১৫
মুক্তিযোদ্ধার মায়ের চরিত্রে অভিনয় করেছি

ছোট পর্দায় নিয়মিত অভিনয় করছেন ফারজানা ছবি। খণ্ড এবং ধারাবাহিক নাটক নিয়েই ব্যস্ততা তার। পশাপাশি সিনেমায় সরব। কিছুদিন আগে নতুন একটি ছবিতে অভিনয় করেছেন।

অভিনয় এবং অন্যান্য বিষয় নিয়ে আজকের ‘হ্যালো...’ বিভাগে কথা বলেছেন তিনি

* প্রশ্ন: অভিনয় অঙ্গনে আপনার ব্যস্ততা কেমন যাচ্ছে?

** ছবি: সবার শুভকামনায় বেশ মসৃণভাবেই এগিয়ে যাচ্ছে আমার অভিনয় জীবন। কাজের ব্যস্ততা নিয়ে আমি সন্তুষ্ট। নাটকেই বেশি অভিনয় করছি। খণ্ড নাটকে তেমন ব্যস্ততা না থাকলেও একাধিক ধারাবাহিক নাটকের কাজ হাতে রয়েছে। এগুলো নিয়েই সময় পার করছি। আর সংসারেও আগের চেয়ে সময় বেশি দিতে হচ্ছে।

* প্রশ্ন: ধারাবাহিক নাটকে কি মনের মতো চরিত্রে অভিনয় করতে পারছেন?

** ছবি: অভিনয় জীবনের শুরু থেকেই নির্মাতারা আমাকে গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রগুলোতে অভিনয়ের সুযোগ করে দিয়েছেন। এখনও যেসব নাটকে অভিনয় করছি, তার সবগুলোতেই মুখ্য চরিত্রে দেখা যাচ্ছে আমাকে। আমি চেষ্টা করছি নির্মাতাদের নির্দেশনা মেনে কাজ করার। যখন ক্যামেরায় দাঁড়াই তখন অন্য কোনো বিষয় মাথায় থাকে না, শুধু এটুকু ভাবি, আমার চরিত্রটি যেন সঠিকভাবে ফুটিয়ে তুলতে পারি।

* প্রশ্ন: শুটিংচলতি কিংবা শেষ হওয়া নাটকের খবর কী?

** ছবি: বেশ কয়েকটি ধারাবাহিক নাটকেই নিয়মিত অভিনয় করছি। এগুলো হল- কায়সার আহমেদের পরিচালনায় ‘বকুলপুর’, সৌম নজরুলের ‘মেছো তোতা গেছো ভূত’, মুজিবুল হক খোকনের ‘আরশীনগর’, এসএম শাহীনের ‘একটি গ্রাম একটি শহর’ উল্লেখযোগ্য। এছাড়া সম্প্রতি বর্ননাথের পরিচালনায় ‘বিরস কাব্য’ নামে একখণ্ডের একটি নাটকেও অভিনয় করেছি। এটিও শিগগিরই টিভিতে প্রচার হবে। আর নতুন কয়েকটি ধারাবাহিক নাটকে অভিনয়ের কথা চলছে।

* প্রশ্ন: বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে নির্মিত একটি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রের কথা শোনা গেছে...

** ছবি: ঠিক শুনেছেন। মান্নান হিরার কাহিনী, সংলাপ ও পরিচালনায় এ ছবির নাম ‘জনকের মুখ’। এটি সরকারি অনুদানে নির্মিত স্বল্পদৈর্ঘ্য একটি ছবি। এর ব্যাপ্তিকাল ৩০ মিনিট। এটি ১৯৭১ সালের ১৪ আগস্ট শহীদ হওয়া মুক্তিযোদ্ধা শহীদ সোলেমানের মায়ের একটি দিনের গল্প। যুদ্ধে যাওয়ার আগে সোলেমান মাকে কথা দেয় দেশ স্বাধীনের পর বঙ্গবন্ধু ফিরে এলে একবারের জন্য হলেও তার সঙ্গে দেখা করাবে। কিন্তু সেটা না পারলেও সহযোদ্ধার মাধ্যমে মায়ের কাছে বঙ্গবন্ধুর একটি ছবি পাঠায়। নানা ঘটনায় ছবিটি শেষ হবে। এতে আমি সেই শহীদ সোলেমান নামের মুক্তিযোদ্ধার মায়ের চরিত্রে অভিনয় করেছি।

* প্রশ্ন: এ ছবিতে অভিনয় করার পর আলাদা কোনো বোধ তৈরি হয়েছে?

** ছবি: আমি স্বচক্ষে যুদ্ধ দেখিনি। বঙ্গবন্ধুকেও দেখিনি। নাটক কিংবা ছবিতে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে আমি মুক্তিযুদ্ধকে দেখেছি, বঙ্গবন্ধুকে দেখেছি। অদেখা সব চরিত্র এবং অজানা সময়টাকে নিজের মধ্যে ধারণ করে আমাকে অভিনয় করতে হয়েছে। এ ছবিতে বাংলাদেশের জন্য জাতির জনকের যে অবদান সবগুলো বিষয় এখানে উঠে এসেছে। অভিনয়ে জীবনে এ ছবিটি আমার বড় একটি অর্জন।

* একটি সামাজিক সচেতনতামূলক সংগঠনের হয়েও কাজ করছেন। সেটার খবর কী?

** ছবি: শুরুতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আমরা যারা ১৯৯৬ সালে এসএসসি উত্তীর্ণ তারা একটি গ্র“প করেছিলাম। এর সদস্য শুধু মেয়েরা। তবে সম্প্রতি আমরা এ সংগঠনের কর্মপরিধি বৃদ্ধি করেছি। আগামী মাসে নারী দিবসে এ সংগঠনের সদস্যদের মায়েদের আমরা সম্মাননা দেব। এর মুখপাত্র হিসেবে আমি দায়িত্ব পালন করছি।


নাটক এর সর্বশেষ খবর

নাটক - এর সব খবর