গ্যাঙরিনের কারণে বাম পা কেটে ফেলতে হয়েছে একসময়ের দাপুটে অভিনেতা বাবরের। রাজধানীর গ্রিন রোডের কমফোর্ট হাসপাতালে গতকাল রোববার তাঁর অপারেশন হয় বলে পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। গুণী এই অভিনেতা দীর্ঘদিন ধরেই নানা শারীরিক সমস্যায় শয্যাশায়ী আছেন।

অভিনেতা বাবরের স্ত্রী লতিফা বাবর বলেন, ‘গতকাল বিকেলে কমফোর্ট হাসপাতালে ডাক্তার খালেকুজ্জামান জিপুর তত্ত্বাবধানে এই অপারেশন হয়েছে। তাঁর হাটুর নিচে থেকে কেটে ফেলে দিয়েছে। এখন অবস্থা খুব ভালো নয়। মৃত্যু যন্ত্রণা ভোগ করছেন হাসপাতালে। এর আগে ডাক্তারের পরামর্শে একই পায়ের তিনটি আঙ্গুল ফেলে দেওয়া হয়েছিল।’

আজ সোমবার দুপুরে লতিফা বাবর আরো বলেন, ‘বাবর সারাজীবন অভিনয় করেছেন ভালোবেসে, তবে টাকা কামাতে পারেননি। আসলে টাকা কামানোর তেমন ইচ্ছে তাঁর ছিলোও না। দীর্ঘদিন ধরেই তিনি অসুস্থ আর আমাদের আর্থিক অবস্থাও ভালো নয়। যে কারণে অনেক কষ্ট করেই আমাদের টাকা ম্যানেজ করে থেমে থেমে চিকিৎসা করাতে হচ্ছে। জানি না কতদিন হাসপাতালে রাখতে পারবো, টাকার অভাবে হয়তো হাসপাতাল ছেড়ে বাসায় চলে যেতে হবে।‘

সবার কাছে দোয়া চেয়ে লতিফা বাবর বলেন, ‘বাবর একজন চলচ্চিত্রপ্রেমী মানুষ। তিনি শারীরিকভাবে অসুস্থ থাকার কারণে নিয়মিত এফডিসিতে না গেলেও ঘরে বসে সবসময় চলচ্চিত্রের খবর রাখেন। নিজে চলচ্চিত্র পরিচালনা করার জন্য চেষ্টা করছিলেন। ঘরে বসে চিত্রনাট্য তৈরি করছিলেন। এখন হয়তো আর চলচ্চিত্রে কাজ করা সম্ভব হবে না। আপনারা সবাই দোয়া করবেন আল্লাহ যেন তাঁকে সুস্থ করে দেন।’

আমজাদ হোসেন পরিচালিত ‘বাংলার মুখ’ চলচ্চিত্রে নায়ক হিসেবে অভিষেক হলেও বাবরকে দর্শকরা চিনেন মূলত খলনায়ক হিসেবে। তিনি এরই মধ্যে তিন শতাধিক চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। শারীরিক অসুস্থতার কারণে দীর্ঘদিন ধরে চলচ্চিত্র থেকে কিছুটা দূরে থাকলেও একটু সুস্থবোধ করলেই এফডিসিতে আড্ডা দিতেন তিনি।

সূত্র: এনটিভি অনলাইন