করন জোহরের ‘কলঙ্ক’ সিনেমা সঞ্জয় দত্ত ও মাধুরী দীক্ষিতকে প্রায় দুই দশক পরে একই দৃশ্যে পাশাপাশি এনে দাঁড় করিয়ে দিল। আর তারপরেই মঙ্গলবার সঞ্জয় দত্ত জানালেন, তিনি তার বহুদিনের সহকর্মী মাধুরীর সঙ্গে আরও বেশি বেশি করে অভিনয় করতে চান।

নব্বইয়ের দশকের অসংখ্য হিট সিনেমায় সঞ্জয় দত্ত এবং মাধুরীকে জুটি হিসেবে দেখা গিয়েছিল। ‘সাজন’, ‘খলনায়ক’ এর মতো অজস্র হিট সিনেমা তাদের ঝুলিতে রয়েছে।

অনেক দিন পরে মাধুরীর সঙ্গে কাজ করে কেমন অনুভূতি? এই প্রশ্নের জবাবে, সঞ্জয় দত্ত সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘সত্যিই অনেক দিন পরে মাধুরীর কাজ করে খুবই ভালো লাগছে। এ বার থেকে মাধুরীর সঙ্গে আরও বেশি করে কাজ করার চেষ্টা করবো।” ‘কলঙ্ক’-এর টিজার মুক্তি অনুষ্ঠানে এসে এ কথা বলেন সঞ্জয় দত্ত।

মাধুরী জানান, পুরোনো সহকর্মী সঙ্গে কাজ করতে সব সময়েই খুব ভালো লাগে। তিনি আরও বলেন, ‘‘আমরা প্রায় কুড়ি বছর পরে একসঙ্গে কাজ করলাম। সম্প্রতি আমি অনেকদিন পরে অনিল কাপুরের সঙ্গেও কাজ করলাম। পুরনো সহকর্মীদের সঙ্গে নতুন করে কাজ করার আনন্দই আলাদা। এক্ষেত্রেও তেমনটাই হয়েছে।”

‘কলঙ্ক’ সিনেমায় অনসম্বল কাস্ট হিসেবে রয়েছেন, বরুণ ধাওয়ান, আলিয়া ভাট, সোনাক্ষী সিংহ এবং আদিত্য রায় কাপুরও। অভিষেক বর্মন পরিচালিত পিরিয়ড ড্রামাটির প্রযোজনা করছে করণ জোহরের ধর্মা প্রোডাকশন। সিনেমাটি মুক্তি পেতে চলেছে আগামী উনিশে এপ্রিল।

মাধুরী দীক্ষিতের চরিত্রটির জন্য প্রথমে শ্রীদেবীর কথা ভাবা হয়েছিল। কিন্তু তার মৃত্যুর পরে চরিত্রটির অফার মাধুরীর কাছে যায়। এ নিয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে মাধুরী বলেন, ‘‘প্রথম যখন আমাকে চরিত্রটির অফার করা হয় তখন আমার মনটা ভারাক্রান্ত হয়ে গিয়েছিল। শ্রীদেবী একজন অসামান্য অভিনেত্রীই শুধু নন, খুবই ভালো মনের মানুষও ছিলেন।

এ ভাবে একটা চরিত্র এলে প্রথমে একটা খারাপ লাগার অনুভূতি কাজ করে। আমরা প্রত্যেক দিনই সেটে ওঁকে মিস করতাম। তবে একবার চরিত্রটার মধ্যে ঢুকে গেলে, ধীরে ধীরে চরিত্রটাই প্রধান হয়ে ওঠে। তখন আমরা চেষ্টা করি নিজের সর্বস্ব দিয়ে সেই চরিত্রটিকে প্রাণবন্ত করে তুলতে।”