ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০১৯, ১১ আষাঢ় ১৪২৬

ঢাকাই ছবির অ্যাকশন খ্যাত প্রয়াত নায়ক মান্নার জন্মদিন আজ

২০১৯ এপ্রিল ১৪ ২৩:৫৭:৩৩
ঢাকাই ছবির অ্যাকশন খ্যাত প্রয়াত নায়ক মান্নার জন্মদিন আজ

আজ ঢাকাই চলচ্চিত্রের এক সময়ের তুমুল জনপ্রিয় প্রয়াত নায়ক মান্নার জন্মদিন। ১৯৬৪ সালে আজকের এই দিনে টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার এলেঙ্গায় জন্মগ্রহণ করেন মান্না। তার আসল নাম এস এম আসলাম তালুকদার।

মান্না শুধু নায়কই ছিলেন না । তিনি একাধারে নায়ক, প্রযোজক ও সংগঠক ছিলেন। ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির খারাপ সময়ে একাই হাল ধরে বহু হিট, সুপার হিট ছবি উপহার দিয়েছিলেন। ইন্ডাস্ট্রির মানুষ এখনও নায়ক মান্নাকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করে। প্রয়াত এই নায়কের জন্মদিন নিয়ে বিভ্রান্তি রয়েছে। উইকিপিডিয়ায় তার জন্ম তারিখ ৬ ডিসেম্বর এবং পাসপোর্টে তার জন্মদিন ১ জানুয়ারি। বিভ্রান্তি থাকলেও তা নিয়ে সংকট দূর করে দিয়েছেন প্রয়াত নায়ক মান্নার সহধর্মিণী শেলী মান্না।

এ বিষয়ে শেলী মান্না আমাদের সময় ডট কমকে বলেন, মান্নার জন্মদিন অনেকে ভুলভাবে উপস্থাপন করেন। আমি গণমাধ্যমে এ বিষয়ে অনেক বলেছি যে মান্নার জন্মদিন ১৪ এপ্রিল অর্থাৎ পয়লা বৈশাখ। তিনি আরও বলেন, মান্নার যারা সহকর্মী আছেন তারা অনেকে জানেন মান্নার জন্মদিন ১৪ এপ্রিল। বহুবার মান্না বৈশাখের প্রথম দিন শুটিং স্পটে সহকর্মী কলাকুশলীদের সাথে নিয়ে তার জন্মদিনের কেক কেটেছে।

উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় পাস করার পরই ১৯৮৪ সালে তিনি নতুন মুখের সন্ধানের মাধ্যমে চলচ্চিত্রে আসেন। এরপর থেকে একের পর এক চলচ্চিত্রে অভিনয় করে নিজেকে সেরা নায়ক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেন এবং চলচ্চিত্র অঙ্গনে তার শক্ত ভিত্তি গড়ে তোলেন। সমগ্র চলচ্চিত্র জীবনে তিনি মোট ৩০০ টির অধিক ছবিতে কাজ করেছেন।

মান্নার প্রথম অভিনীত ছবির নাম তওবা, কিন্তু প্রথম মুক্তি পায় পাগলি ছবিটি। ১৯৯১ সালে মোস্তফা আনোয়ার পরিচালিত কাসেম মালার প্রেম ছবিতে প্রথম একক নায়ক হিসেবে সুযোগ পেয়েছিলেন। এর আগে সব ছবিতে মান্না ২য় নায়ক হিসেবে অভিনয় করেছেন। কাসেম মালার প্রেম ছবিটি দর্শকের মাঝে সাড়া ফেলার কারনে মান্না একের পর এক একক ছবিতে কাজ করার সুযোগ লাভ করেন। এরপর কাজী হায়াত পরিচালিত দাঙ্গা ও ত্রাস ছবির কারনে তাঁর একক নায়ক হিসেবে প্রতিষ্ঠা পাওয়া সহজ হয়ে যায়।

এরপর মোস্তফা আনোয়ার এর অন্ধ প্রেম, মনতাজুর রহমান আকবর এর প্রেম দিওয়ানা, ডিস্কো ড্যান্সার, কাজী হায়াত এর দেশদ্রোহী, আকবরের বাবার আদেশ ছবিগুলো মান্নার অবস্থান শক্তভাবে প্রতিষ্ঠিত করে। ১৯৯৮ সালে মুক্তি পায় শান্ত কেনো মাস্তান ও ১৯৯৯ সালে আকবরের ‘কে আমার বাবা’, কাজী হায়াত এর আম্মাজান, রায়হান মুজিব ও আজিজ আহমেদ বাবুল এর খবর আছে, মালেক আফসারী পরিচালিত এবং তার প্রযোজিত ২য় ছবি লাল বাদশা মতো সুপারহিট ছবি।

মান্না শুধু চলচ্চিত্র অভিনেতাই ছিলেন না, তার প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান থেকে যতগুলো ছবি প্রযোজনা করেছেন, প্রতিটি ছবি ব্যবসাসফল হয়েছিল। ছবিগুলো হচ্ছে লুটতরাজ, লাল বাদশা, আব্বাজান, স্বামী স্ত্রীর যুদ্ধ, দুই বধূ এক স্বামী, মনের সাথে যুদ্ধ, মান্না ভাই ও পিতা মাতার আমানত।

২০০৮ সালের ১৭ই ফেব্রুয়ারি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মাত্র ৪৪ বছর বয়সে মান্না মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুর পর টাঙ্গাইলে তার নিজ গ্রাম এলেঙ্গায় তাকে সমাহিত করা হয়। মৃত্যুর পূর্বপর্যন্ত তিনি বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।


ঢালিউড এর সর্বশেষ খবর

ঢালিউড - এর সব খবর