ঢাকা, শনিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৮, ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

সালমান ব্যর্থ, শঙ্কায় শাহরুখ-আমিরও

২০১৮ নভেম্বর ০৮ ২২:৪৮:৫২
সালমান ব্যর্থ, শঙ্কায় শাহরুখ-আমিরও

চলতি বছরে সালমান খানের সবচেয়ে বড় ধামাকা ধরা হয়েছিল ‘রেস থ্রি’ ছবিটিকে। এ ছবির প্রথম দুটিতে অভিনয় করেছিলেন সাইফ আলি খান। দুটিই সুপারহিট এবং ব্যবসাসফল হয়েছিল। তৃতীয় কিস্তিতে সালমানকে ভিড়িয়ে আরও বড় দাউ মারার চিন্তা করেছিলেন পরিচালক রেমো ডি’সুজা এবং প্রযোজক সংস্থা টিপস ফিল্মস। কিন্তু বাস্তবে সেটির প্রতিফলন ঘটাতে পারেননি ভাইজান। আশানুরূপ ব্যবসা করতে পারেনি তার ‘রেস থ্রি’।

সালমান খানের ব্যর্থতার পরেই এবার হিসাব নিকাশ শুরু হয়েছে বাকি দুই খানকে নিয়ে। আলোচনার কেন্দ্রে চলতি বছরের আরও দুই ধামাকা আমির খানের ‘ঠগস অব হিন্দুস্থান’ এবং শাহরুখ খানের ‘জিরো’। আজ বৃহস্পতিবার মুক্তি পেয়েছে আমির খান, ‘ঠগস অব হিন্দুস্থান’। বলিউড সূত্রে খবর, বিপুল প্রচার সত্ত্বেও ইতিহাসনির্ভর এই ছবির অ্যাডভান্স বুকিং প্রত্যাশা মতো হয়নি। গোটা ভারতের অধিকাংশ প্রেক্ষাগৃহ মালিকরাই হতাশ।

কলকাতার মাল্টিপ্লেক্স চেনের মালিক বলেন, ‘ছবির অগ্রিম টিকিট বিক্রি ভালো না। অথচ ছবিতে আমির খান আছেন।’ অ্যাডভান্স বুকিংয়ের এই নাজুক অবস্থার জন্য প্রেক্ষাগৃহ মালিকরা ছবির ট্রেলারকে দায়ী করেছেন। তাদের দাবি, ‘ট্রেলারে মৌলিকতার অভাব। ‘মঙ্গল পাণ্ডে’ এবং ‘ক্রান্তি’ ছবির ঘরানায় তৈরি এই ট্রেলার দর্শকদের মধ্যে উৎসাহ তৈরিতে ব্যর্থ হয়েছে। টিকিট না কেটে দর্শকরা তাই ছবির রিভিউয়ের দিকে তাকিয়ে আছেন।’

বিজয় কৃষ্ণ আচার্য পরিচালিত ‘ঠগস অব হিন্দুস্থান’ নির্মিত হয়েছে ১৮৩৯ সালে ফিলিপ মেডোস টেইলরের লেখা ‘‌কনফেশন অফ আ ঠগ’ উপন্যাস অবলম্বনে। এই ছবির মাধ্যমে উপনিবেশিক আমলে ভারতের প্রতারকচক্র বা ঠগদের নানা দুঃসাহসিক কাণ্ড তুলে ধরা হয়েছে। যেখানে আমির খান ছাড়াও আছেন ‘বলিউড শাহেনশাহ’ খ্যাত অমিতাভ বচ্চন, ক্যাটরিনা কাইফ ও ফাতিমা সানা শেখ।

অন্যদিকে সুখবর নেই শাহরুখ খানের ‘জিরো’র জন্যও। বড়দিন উপলক্ষে আগামী ২১ ডিসেম্বর ভারতজুড়ে মুক্তি পাবে আনন্দ এল রাই পরিচালিত এই ছবি। কিন্তু তার আগেই বড় ধরণের বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে ‘জিরো’কে ঘিরে। গত ২ নভেম্বর শাহরুখ খানের জন্মদিনে মুক্তি পায় এটির ট্রেলার। যেটি দেখে রীতিমতো ক্ষিপ্ত ভারতের শিখ সম্প্রদায়। ট্রেলারের একটি দৃশ্যে শাহরুখ খানকে গাত্র কৃপাণ (শিখ ধর্মবিশ্বাসের একটি প্রতীক) পরে থাকতে দেখা যায়। তাতেই বেজায় চটেছে শিখ সম্প্রদায়ের একাংশ।

ওই দৃশ্যের জেরেই শাহরুখ খান ও পরিচালক আনন্দের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করেন দিল্লি শিখ গুরুদ্বার ম্যানেজমেন্ট কমিটির সাধারণ সম্পাদক মনজিন্দর সিং সিসরা। তার অভিযোগ, ছবিতে শাহরুখ খান যে গাত্র কৃপাণ পরেছেন, সেটি শুধুমাত্র একজন ধার্মিক শিখই পরতে পারেন। চিঠি দিয়ে শাহরুখ ও আনন্দের বিরুদ্ধে তিনি এফআইআর দায়েরের অনুরোধ জানান। অভিযোগ গেছে সেন্সর বোর্ডেও। ওই দৃশ্যটি যেন কেটে ফেলা হয়, সেই আর্জি জানানো হয় বোর্ডের কাছে।

যদিও ‘জিরো’র সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের দাবি, শাহরুখ খান যেটি পরেছেন সেটি কৃপাণ নয়। কিন্তু এই দাবি বিতর্কে জল ঢালতে পারেনি। ভারতের সাবেক বিধায়ক এবং মুম্বাইয়ের কংগ্রেস নেতা চরণ সিং সাপ্রা পুলিশের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন। তার দাবি, ‘ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত দেয়ার অভিযোগে ‘জিরো’র পরিচালক ও প্রযোজককে ভারতীয় দণ্ডবিধির ২৯৫(এ) ধারা অনুযায়ী সমন জারি করা হোক।’

নানা হিসাব নিকাশ করে তাই বলিউড বোদ্ধাদের মনে একটা প্রশ্নই ঘুরপাক খাচ্ছে, শাহরুখের ‘জিরো’ এবং আমিরের ‘ঠগস অব হিন্দুস্থান’র অবস্থাও কি সালমানের ‘রেস থ্রি’র মতো হবে? উত্তর মিলবে সময় হলেই।


বলিউড এর সর্বশেষ খবর

বলিউড - এর সব খবর