ঢাকা, সোমবার, ১৮ জুন ২০১৮, ৪ আষাঢ় ১৪২৫

বাস্তব জীবনের গল্প থেকে তৈরি হয়েছে যে সাত সিনেমা! জেনে নিন বিস্তারিত

২০১৮ মার্চ ০৭ ২০:৩০:২২
বাস্তব জীবনের গল্প থেকে তৈরি হয়েছে যে সাত সিনেমা! জেনে নিন বিস্তারিত

হলিউডের সিনেমা দেখতে কে না ভালবাসে! সিনেমার এ হাসি-কান্নার গল্পগুলো দিনশেষে ফ্রেমের গন্ডি ছাড়িয়ে জায়গা করে নেয় আমাদের স্মৃতিতে। এ গল্পগুলোর মধ্যে যদি বাস্তব জীবনের গল্প মিলে মিশে একাকার হয়ে যায়, তাহলে তার মাত্রা চলে যায় অন্য উচ্চতায়। চলুন পাঠক, আজ জেনে আসি বাস্তব জীবনের ভালোবাসার গল্পগুলো নিয়ে নির্মিত কিছু

সিনেমার কথা!

১. দ্য ভউ
এ সিনেমাটি নব্যবিবাহিত দম্পতি কিম ও ক্রিকিট কারপেন্টারের বাস্তব জীবনের গল্প নিয়ে। ১৯৯৪ সালে ক্রিকিট এক ট্রাক দুর্ঘটনায় মারাত্মকভাবে আহত হন। এরপর তিনি কোমায় থাকেন ২১দিন। পরবর্তীতে দেখা যায় ক্রিকিট তার ফেলে আসা তার বিগত ২ বছরের স্মৃতি কিছুই মনে করতে পারছেন না। চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় এ রোগকে এমনেসিয়া বলা হয়ে থাকে। তিনি পরবর্তীতে নতুন করে হাঁটাচলা, কথা বলা সবকিছু শিখে নেন। এই কঠিন সময়গুলোতে তার স্বামী কিম সর্বদাই পাশে ছিলেন। ক্রিকিটের কিছুই মনে না থাকার দরুণ তারা পরবর্তীতে আবার বিয়ে করেন। বাস্তব জীবনের এই অসাধারণ গল্প অবলম্বনে তৈরি করা সিনেমাটিতে অভিনয় করেন চ্যানিং টাটুম এবং র‍্যাচেল ম্যাকএডামস। সিনেমাটি পরিচালনা করেন মাইকেল সাকসি যা ২০১২ সালে মুক্তি পায় এবং অসাধারণ জনপ্রিয়তা লাভ করে।

২. কুইন অব দ্য ডেজার্ট
ব্রিটিশ লেখিকা গারট্রুড বেলের প্রেম কাহিনী অবলম্বনে করা এ সিনেমাটি। গারট্রুড ব্রিটেনের এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি সর্বপ্রথম মহিলা ছিলেন যিনি আধুনিক ইতিহাসে মার্গারেট হল, অক্সফোর্ড থেকে স্নাতক শেষ করেন। কর্মসূত্রে তিনি ১৮৯২ সালে ইরান ভ্রমণ করেন। সেখানে তিনি ফরেন সার্ভিসের সদস্য হেনরি কাদোগ্যানের প্রেমে পড়েন। কিন্তু বিধি বাম! তার পরিবার হেনরির জুয়ার অভ্যাসকে ভালোভাবে নেয়নি। তাই হেনরির সাথে তার আর সংসার করা হয়নি।

পরবর্তীতে তিনি এক বিবাহিত ব্রিটিশ অফিসার ডিক ডাফটি উইলির প্রেমমুগ্ধ হন। টেলিগ্রাফ পত্রিকা অনুযায়ী তাদের এ সম্পর্কে অনেকদিন চিঠি চালাচালি হয়। এমনকি বেল তার প্রেমিককে আপন করে পাওয়ার জন্য ডাফটির স্ত্রীকে আত্মহত্যার হুমকিও দেন। সব নাটকীয়তার করুণ অবসান ঘটে যখন ডাফটি ১৯১৫ সালে গাল্লিপলিতে যুদ্ধে মারা যান। এই বাস্তব গল্প নিয়ে নির্মিত সিনেমাটিতে অভিনয় করেছেন নিকোল কিডম্যান, জেমস ফ্রাঙ্কো, রবার্ট প্যাটিনসন ও ডেমিয়েন লুইস ছাড়াও আরো অনেকে। ২০১৫ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত এ সিনেমাটি পরিচালনা করেন ওয়ার্নার হার্জোগ।

৩. দ্য থিওরি অব এভ্রিথিং
বিজ্ঞানী স্টিফেন হকিং এর কথা আমরা প্রায় সবাই কমবেশি জানি। ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করার সময় তিনি তার স্ত্রী জেন ওয়াইন্ডের সাথে পরিচিত হন। স্টিফেন হকিং এর মোটরনিউরন ডিজিজ থাকা সত্বেও তাদের ভালোবাসাকে চুড়ান্তরূপ দিতে ১৯৮১ সালে ওয়াইন্ডের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। পরবর্তীতে ‘বিগ ব্যাং থিওরি’ নিয়ে গবেষণার সময় তিনি প্রচন্ড অসুস্থ হয়ে পড়েন এবং হুইল চেয়ারে থেকে তার গবেষণার কার্যক্রম চালিয়ে যান। এই কঠিন মুহুর্তে তার স্ত্রী পাশে থেকে অনুপ্রেরণা যোগান। নানা ঘাত-প্রতিঘাত পেরিয়ে সিনেমার গল্পটি এগিয়ে যায়। সিনেমাটিতে স্টিফেন হকিং এর চরিত্রে অভিনয় করেছেন এডি রেডমেইন ও তার স্ত্রীর চরিত্রে অভিনয় করেছেন ফেলিসিটি জোনস। ২০১৪ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত এ সিনেমাটির পরিচালক জেমস মার্শ জিতে নেন ব্যবসায়িক সাফল্যসহ অসংখ্য পুরষ্কার ।

৪. আ বিউটিফুল মাইন্ড
বিখ্যাত গণিতবিদ ও অর্থনীতিতে নোবেলজয়ী জন ন্যাশ এর জীবন থেকে নেওয়া এই সিনেমাটি নির্মাণ করেছেন পরিচালক রন হাওয়ার্ড। গেইম থিউরির উদ্ভাবক এ মানুষটির প্যারানয়েড সিজোফ্রেনিয়া রোগে আক্রান্ত হওয়াটা ছিলো তার জীবনের অন্যতম এক প্রতিবন্ধকতা। নানান ঘাত প্রতিঘাতের মধ্য দিয়ে বয়ে যাওয়া ন্যাশের জীবনে স্ত্রী এলিসিয়া লার্ডের অটুট ভালোবাসা ছিল অনন্য। এ সিনেমাটিতে বিজ্ঞানী ন্যাশের চরিত্রে অভিনয় করেছেন রাসেল ক্রো আর তার স্ত্রী এলিসিয়ার চরিত্রে অভিনয় করেন জেনিফার কানেলি। ৪টি ক্যাটাগরিতে অস্কারজয়ী এ সিনেমাটি মুক্তি পেয়েছিলো ২০০১ সালে, যা বলিউডের অন্যতম ব্যবসাসফল ছবিগুলোর মধ্যে একটি।

৫. দ্য এজ অব লাভ
ওয়েলসের বিখ্যাত কবি ডিলান থমাসের বাস্তব জীবনের ঘটনা অবলম্বনে গড়ে উঠেছে এ সিনেমার কাহিনী। ডিলান ও তার প্রথম প্রেমিকা ভেরা ফিলিপসের জটিল প্রেমকাহিনী গল্পকে দিয়েছে জটিল পরিণতি। সিনেমাটিতে ডিলানের চরিত্রে অভিনয় করেন ম্যাথু রাইস, তার স্ত্রী ক্যাটলিন ম্যাকনামারা’র চরিত্রে অভিনয় করেন সিয়েনা মিলার এবং তার প্রেমিকা ভেরা’র চরিত্রে অভিনয় করেছেন কেইরা নাইটলি। এটি মুক্তি পায় ২০০৮ সালে যা এডিনবার্গ আন্তর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভালে মনোনীত হয়। এ সিনেমাটি পরিচালনা করেন জন মেইব্যুরি।

৬. বিকামিং জেইন
এই সিনেমাটি গড়ে উঠেছে বিখ্যাত ইংরেজ লেখক জেইন অস্টিন ও আইরিশ আইনপ্রণেতা থমাস লেফ্রয়ের ভালবাসার গল্পকে কেন্দ্র করে। তাদের দু’পরিবার থেকেই আপত্তি জানানোর জন্য তাদের ঘর বাঁধার স্বপ্ন অধরাই রয়ে যায়। শেষ পর্যন্ত ভালবেসে যাওয়া জেইন ও লেফ্রয়ের জীবনে অনেক চড়াই উৎরাই পেরিয়ে এগিয়ে যায় তাদের এ সম্পর্ক। সিনেমাটিতে জেইনের চরিত্রে অভিনয় করেন অ্যান হ্যাথঅ্যাওয়ে ও থমাস লেফ্রয়ের চরিত্রে অভিনয় করেন জেমস ম্যাকএভয়। ২০০৭ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত এ সিনেমাটি পরিচালনা করেন জুলিয়ান জেরাল্ড।

৭. দ্য ইনভিজিবল উইমেন
ব্রিটিশ সাহিত্যিক চার্লস ডিকেন্সের নাম শোনেননি এমন মানুষ হয়তো কমই আছেন। এই মহান সাহিত্যিকের জীবনের কাহিনী নিয়ে রচিত এই দ্য ইনভিজিবল উইমেন সিনেমাটি। ১৮৫৭ সালে লন্ডনের হায়মার্কেট থিয়েটারে অভিনয় করতে আসা ১৮ বছর বয়সী তরুণী এলেন নেলি টার্নানের দেখা পান। তখন ৪৫ বছর বয়স্ক বিবাহিত এ সাহিত্যিক ক্রমেই তার প্রতি আকৃষ্ট হন। অনেক নাটকীয়তার মধ্যে চলতে থাকে তাদের ভালোবাসা। ১৮৭০ সালে ডিকেন্সের মৃত্যুর আগ পর্যন্ত ছিলো তাদের এ বন্ধন। এ সিনেমায় প্রেমিকা নেলির চরিত্রে অভিনয় করেন ফেলিসিটি জোনস ও চার্লস ডিকেন্সের চরিত্রে অভিনয় করেন স্বয়ং পরিচালক র‍্যালফ ফিয়েনেস। এ সিনেমাটি কয়েকটি ক্যাটাগরিতে অস্কারের জন্য মনোনীত হয়।

ভালোবাসার ঘটনাগুলো কতই না বিচিত্র !


হলিউড এর সর্বশেষ খবর

হলিউড - এর সব খবর