ঢাকা, সোমবার, ২৩ এপ্রিল ২০১৮, ১০ বৈশাখ ১৪২৫

মুক্ত বিহঙ্গের মতো তার স্বভাব

২০১৮ জানুয়ারি ১১ ২১:০৭:৫৯
মুক্ত বিহঙ্গের মতো তার স্বভাব

একটু চঞ্চল। মুখে এক চিলতে হাসি। ঠিক যেন দুষ্টু কিশোরী। এই মাহি আবার বদলে যান ক্যামেরার সামনে দাঁড়ালে। মনে হয়, এ যেন অন্য কেউ। পর্দার ভেসে ওঠা তার চরিত্রই যেন বাস্তব। গল্প তাই হয়ে ওঠে তার জীবনের নানা অধ্যায়। এভাবেই অভিনয় দিয়ে একের পর সাফল্যের সিঁড়ি ভাঙছেন তিনি। হয়ে উঠেছেন সেলুলয়ের এক উজ্জ্বল তারকা।

‘কেউ কেউ প্রশ্ন করেন, প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ছাড়া অভিনয় শেখা যায়? এর জবাবে আমি চুপচাপ থাকি। কারণ এ নিয়ে কোনো তর্কে যেতে চাই না। অন্যদের কথা জানি না, নিজের বিষয়ে শুধু এটুকু বলতে পারি, প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার চেয়ে পৃথিবীর কাছ থেকে শেখার বিষয়টিকেই আমি বেশি গুরুত্ব দিয়েছি। কারণ আমার কাছে পৃথিবী একটা পাঠশালা। সেই পাঠশালার শিক্ষার্থী হয়ে আমি শুধু চারপাশের মানুষগুলোকে দেখি। বোঝার চেষ্টা করি, কেমন তাদের যাপিত জীবন। কর্মজীবন কিংবা স্বপ্নপূরণের সাফল্য বা ব্যর্থতাকে তারা কীভাবে গ্রহণ করেন। ভাব-ভালোবাসা, রাগ-ক্ষোভ, দুঃখ-কষ্ট-ঘৃণায় কেমন হয় তাদের আচরণ। এই দেখাদেখি থেকে আমি জানার চেষ্টা করি, সমাজ-সংসারের রীতিনীতি; আবিস্কার করি, গহিনে লুকিয়ে থাকা মানুষটিকে। পরোক্ষভাবে হলেও এসব মানুষ আমাকে অভিনয়ের পাঠ গ্রহণে সহযোগিতা করে। এখনও তাই ক্যামেরার সামনে দাঁড়ানোর আগে চরিত্রকে আত্মস্থ করে নেওয়ার চেষ্টা করি। চোখে দেখা মানুষগুলোর সঙ্গে চরিত্রটির তার কতটা পার্থক্য আছে, তা নির্ণয় করার চেষ্টা করি। এরপর নিজে কেমন, তা ভুলে গিয়ে চরিত্রটির মতো নিজেকে উপস্থাপন করার চেষ্টা করি। তারপরও কিছু ভুল-ত্রুটি হয়েই যায়। সেটা তার শুধরে দেন পরিচালক।’

যার অভিনয় দেখে লাখো দর্শক মুগ্ধ, সেই মাহিয়া মাহি এ কথাগুলোর মধ্য দিয়ে জানিয়ে দিলেন, তার অভিনয় রপ্ত করা ও চরিত্র উপস্থাপনার কলা-কৌশল। আরও জানা গেল, ‘ভালোবাসার রং’ থেকে শুরু করে ‘অন্যরকম ভালোবাসা’, ‘পোড়ামন’, ‘ভালোবাসা আজকাল’, ‘অগ্নি’, ‘দবির সাহেবের সংসার’, ‘ময়নামতি’, ‘দেশা :দ্য লিডার’, ‘ওয়ার্নিং’, ‘অগ্নি-টু’, ‘রোমিও ভার্সেস জুলিয়েট’, ‘কী দারুণ দেখতে’, ‘অনেক সাধের ময়না’, ‘হানিমুন’, ‘কৃষ্ণপক্ষ’, ‘ঢাকা অ্যাটাক’সহ প্রতিটি চলচ্চিত্রে মাহি চরিত্রকে চেনাজানা মানুষের আদলে উপস্থাপন করতে চেয়েছেন। যাতে করে চরিত্রটি বানোয়াট বা অতি-কাল্পনিক মনে না হয়। যদিও নিজেকে ভালো অভিনেত্রী বলে স্বীকার করতে চান না, তারপরও এটাও সত্য যে, নিজস্ব প্যাটার্নে অভিনয়ের মধ্য দিয়েই তিনি মানুষের হৃদয়ে অবস্থান করতে চান। এটুকু প্রত্যাশা মাহি করতেই পারেন। কেননা, অভিনয়ে একের পর সাফল্যের সিঁড়ি ডিঙিয়ে আজ তিনি চলচ্চিত্রের উজ্জ্বল এক তারকা।

মাহির কথায় জানা গেল, অভিনয়ে মানুষের যাপিত জীবনের ছায়া তুলে ধরেন তিনি। তাই বলে চরিত্র নিয়ে দিন-রাত ভাবনায় ডুবে থাকেন না। শুধু শুটিংয়ের আগে কিছুক্ষণ ধ্যানমগ্ন হয়ে থাকেন চরিত্রকে আত্মস্থ করার জন্য। কারণ সহজাত অভিনয় দিয়েই চরিত্রের মাঝে বাস্তব জীবনের ছায়া তুলে ধরতে চান।

তার কথার রেশ ধরেই তাই জানাতে চাইলাম, চরিত্র আত্মস্থ করার জন্য অচেনা মানুষদের মতো বড় কোনো শিল্পীকে অনুকরণ করেন কি?

এর উত্তরে সোজাসাপ্টা বলে দিলেন, ‘না, সেটা কখনোই করি না। এ কথা ঠিক যে, বড় শিল্পীদের অভিনয় আমাকে অনুপ্রাণিত করে- শাবানা, ববিতা থেকে শুরু করে শাবনূর, মৌসুমীর মতো বড় শিল্পীদের দেখে অনেকটা পথ পাড়ি দেওয়ার ইচ্ছা হয়। কিন্তু এটাও জানি, দর্শক না চাইলে কখনও তাদের মতো দীর্ঘপথ পাড়ি দেওয়া সম্ভব নয়। যদি এমন হয় যে, একের পর এক আমার ছবি ফ্লপ করছে, অভিনেত্রী হিসেবেও দর্শকের মাঝে সাড়া জাগাতে পারছি না, তাহলে নিজেই অভিনয় থেকে সরে দাঁড়াব।’ মাহির এ কথায় স্পষ্ট যে, বাস্তবতা মেনে নিতে তিনি সবসময় প্রস্তুত। তবে চলচ্চিত্র অঙ্গন থেকে নিজেকে কখনও সরিয়ে নিতে হবে, এটা নিশ্চয় মাহি ভক্তরা মেনে নেবেন না। কারণ ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই যিনি নানা ধরনের ছবিতে অভিনয় করে দর্শকহৃদয় জয় করেছেন, তার পথচলা এত সহজেই থেমে যেতে পারে না। অন্তত মাহি ভক্তদের মুখে এমন জবাব আশা করা যেতেই পারে। এখন কথা হলো, যে ছবিগুলো মাহিকে আজকের অবস্থান গড়ে দিয়েছে, তা নির্বাচনে কোন বিষয়গুলো গুরুত্ব দিয়েছেন তিনি। সেটা জানতে চাইলে মাহি একটু মজা করেই বললেন, ‘এটা আসলে ঝড়ে বক পড়ার মতো ঘটনা। কারণ অভিনয়ের শুরু থেকে কয়েক বছর আমি কোনো বাছাই করে কাজ করিনি। যেসব ছবিতে অভিনয়ের প্রস্তাব পেয়েছি, তা কতটা ভিন্নধর্মী হবে, দর্শকের মাঝে সাড়া জাগাবে, তার বিন্দুমাত্র ধারণা ছিল না। আমার দিক থেকে শুধু এটাই করেছি, চরিত্র যেন অবাস্তব মনে না হয়। অভিনয় দিয়ে সেটুকু করার চেষ্টা ছিল। ভাগ্যবান বলেই হয়তো আমার একাধিক ছবি সাফল্য পেয়েছে। সেই সুবাদে দর্শকের ভালোবাসা পেয়েছি অনেক। একজন অভিনেত্রীর জন্য এর চেয়ে বেশি আর কী পাওয়ার থাকতে পারে।’ তাহলে কি বাছাই করে কাজ করার পক্ষপাতী নন? এর জবাবে মাহি বলেন, ‘আমি কিন্তু বলিনি, বাছ-বিচার করে কাজ করতে চাই না। আসলে ক্যারিয়ারের শুরু থেকে যেসব ছবিতে অভিনয়ের প্রস্তাব পেয়েছি, তার কোনো গল্পই গৎবাঁধা সস্তা বলে মনে হয়নি। যে জন্য বাছাই করে কাজও করতে হয়নি। দর্শকও যখন সেসব ছবি দেখে তাদের ভালো লাগার কথা জানিয়েছেন। এ কারণে আমারও মনে হয়েছে, আগে যেসব ছবিতে অভিনয় করেছি, তাতে কিছুটা হলেও দর্শকের ভালো লাগার মতো উপকরণ ছিল।’

কিন্তু সবসময় কি এমন সুযোগ পাবেন? এ প্রশ্নে মাহি বলেন, “আমি নিজেও জানি, সবসময় এমন সুযোগ পাব না। যে জন্য এখন কাজের বিষয়ে ভাগ্য নয়, নিজের ওপর নির্ভর করতে চাই। ‘কৃষ্ণপক্ষ’, ‘ঢাকা অ্যাটাক’, ‘জান্নাত’ ছবিগুলোয় অভিনয় করতে গিয়ে মনে হয়েছে, এই ছবিগুলো আমাকে আরও এক ধাপ এগিয়ে যেতে সাহায্য করবে। যে জন্য ‘হারজিৎ’, ‘মনে রেখো’, ‘পবিত্র ভালোবাসা’সহ যেসব ছবিতে অভিনয় করছি, তার গল্প-চরিত্র ও নির্মাতাকে গুরুত্ব দিয়েছি। চাইছি এমন আরও কিছু ছবিতে কাজ করে শিল্পী হিসেবে নিজেকে পরিণত করতে।” কাজের বিষয়ে মাহি যে আগের চেয়েও সচেতন, তার এ কথা থেকেই বোঝা গেল। এখন প্রশ্ন হলো, ভালো কাজের জন্য নাকি বিয়ের পর আগের তুলনায় কাজ কমিয়ে দিয়েছেন? এর জবাব দিতে গিয়ে একটু হেসে মাহি বললেন, “না না, বিয়ের জন্য এমন সিদ্ধান্ত নিইনি।

ভালো কাজ কিন্তু চাইলেই যখন-তখন হাতে আসে না। তার জন্য অপেক্ষা করতে হয়। আমি তেমন কাজেরই অপেক্ষায় আছি। তাছাড়া বিয়ে করলেই সব আকাঙ্ক্ষাকে জলাঞ্জলি দিতে হবে- এটাও আমি বিশ্বাস করি না। আমার স্বামী অপুও অভিনয়ের বিষয়ে বাদ সাধেনি। বরং আমাকে প্রতিনিয়ত অনুপ্রেরণা দেয় সে। এমন কি শুটিংয়ে যাওয়া, শুটিং থেকে ফেরার সময়টাও সঙ্গে থাকার চেষ্টা করে। শত ব্যস্ততার মাঝেও সময় দেওয়ার চেষ্টা করা।অপু বলে, তোমার কাছে যতদিন ভক্তদের প্রত্যাশা থাকবে- ততদিন অভিনয় করে যাও, আমি তোমার পাশে থাকব। স্ত্রী হিসেবে স্বামীর কাছে পাওয়া এই অনুপ্রেরণা, আমাকে দুরন্ত দুর্বার গতিতে ছুটে যাওয়ার সাহস জুগিয়েছে। এর বেশি আর কি চাই। তাই আমিও এখন স্বপ্ন দেখি, এমন কিছু ছবিতে অভিনয়ের, যা দেখার জন্য হলের ভেতর বাইরে থাকবে উপচে পড়া ভিড়। প্রতিটি সিনেমা হলে লেখা ‘প্রেক্ষাগৃহ পূর্ণ’ কিংবা ‘হাউজফুল’। ভক্তদের কাছে প্রতিনিয়ত পাব নতুন ছবির জন্য আবদার। এভাবেই বাড়বে সফল ছবির সংখ্যা। সেই সুবাদে আমার নাম লেখা হবে- খ্যাতিমান শিল্পীদের নামের পাশে। জানি এটা অনেক বড় স্বপ্ন। কারণ স্বপ্ন ছাড়া তো বেঁচে থাকা যায় না।”


ঢালিউড এর সর্বশেষ খবর

ঢালিউড - এর সব খবর