ঢাকা, শুক্রবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৮, ৩ কার্তিক ১৪২৫

হাসলে কি হয় জানেন?

২০১৭ ডিসেম্বর ১২ ১৭:১৭:২৩
হাসলে কি হয় জানেন?

সুন্দর হাসির মাধ্যমেই অনেকের মধ্যে মানুষ নিজেকে আকর্ষণীয় করে তুলতে পারে। মানসিক চাপে জীবনযাপন করলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়। এতে হৃদরোগসহ নানা ধরনের অসুস্থতা বেড়ে যায়। হাসির মাধ্যমে মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে।

তাই প্রতিদিন হাসিখুশি থাকার চেষ্টা করুন। একজন গোমড়ামুখো মানুষও হাসিমুখ পছন্দ করেন। হাসি মানসিক চাপ

কমায়। ক্লান্তি ও বিরক্তি থেকে মুক্তি দেয়। অনেক চাপের মধ্যে থাকলেও হাসার চেষ্টা করুন। রোগ প্রতিরোধেও হাসি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

হাসির সাথে ‘এনডোরফিন’ নিঃসরণ হয়, যা আপনার মস্তিষ্কে জাগায় ভালো লাগার অনুভূতি। দীর্ঘদিন সুস্থ থাকতে চাইলে দিনে অন্তত ১৫ মিনিটের মনখোলা হাসি খুব বেশি জরুরি। চলুন আজকে দেখে নেয়া যাক দৈনিক ১৫ মিনিটের প্রাণখোলা হাসি যেভাবে সুস্থ রাখে আপনাকে তার একটি তালিকা।
হাসি দেহের ইমিউন সিস্টেম উন্নত করে:
নেতিবাচক মনোভাব এবং মানসিক চাপের কারণে দেহে একধরণের কেমিক্যাল রিঅ্যাকশন ঘটায় যা আমাদের দেহের ইমিউন সিস্টেম দুর্বল করে তোলে এবং আমরা অসুস্থবোধ করি। কিন্তু প্রাণখোলা হাসি আমাদের ইমিউন সিস্টেম উন্নত করে তোলে। এতে করে আমাদের দেহ রোগ প্রতিরোধ করতে পারে এবং আমরা সুস্থ থাকি।
হাসলে দেহের রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি পায়:
আমরা যখন প্রাণখোলা হাসি হেসে থাকি তখন আমাদের দেহে রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি করে। এতে দেহের প্রতিটি অঙ্গপ্রত্যঙ্গে এবং মস্তিষ্কে ভালোভাবে রক্ত সঞ্চালন হয় যা প্রতিটি অঙ্গপ্রত্যঙ্গকে সচল এবং সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।
হাসলে ক্যালোরি ক্ষয় হয়:
আমরা দেহের ক্যালোরি ক্ষয়ের জন্য কতো কিছুই না করে থাকি। কিন্তু আমরা জানিও না সারাদিনের প্রাণখোলা হাসি আমাদের ক্যালোরি ক্ষয় করতে কতোটা সহায়ক। মাত্র ১৫ মিনিটের প্রাণ খোলা হাসি আমাদের ২০-৪০ ক্যালোরি পর্যন্ত ক্ষয় করে।
হাসার উপায়ঃ হাসি কি এতই সহজ যে চাইলেই পারা যায়? তাছাড়া মন ভাল না থাকলে হাসি আসবে কেন? হা একটু চেষ্টা করলে প্রাণ খুলে হাসি নিয়ে আসা কোন ব্যাপারই না।
হাসার উপায়:
হাসি কি এতই সহজ যে চাইলেই পারা যায়? তাছাড়া মন ভালো না থাকলে হাসি আসবে কেন? হা একটু চেষ্টা করলে প্রাণ খুলে হাসি নিয়ে আসা কোনো ব্যাপারই না।
কাজের ফাঁকে সহকর্মী সাথে ৫-১০ মিনিটের একটা আড্ডা দিয়ে দেন। দুপরের খাবার ও নাস্তা একসাথে করলে সহজেই প্রাণবন্ত আড্ডা চলে আসে।
বন্ধুদের সাথে মজার আড্ডা দেবার কিছুটা সপ্তাহের একটা দিন অন্তত কিছু সময় বের করুন। আড্ডাতে নিজেও অংশগ্রহণ করে হাসুন।
কয়েক মিনিট কৌতুক পড়ে নিন বা কয়েকটি হাসির ভিডিও ক্লিপ দেখে নিন আর জোরে জোরে হাসুন।
নিজের জীবনের হাসির মুহুর্তগুলোর ছবি দেখুন, স্মৃতিচারণ করুণ, বাল্যকালের ঘটনা, বন্ধুদের সাথে মজার ঘটনা সব মনে করুণ হাসি আসবেই।
পরিবার নিয়ে একটু বাহিরে ঘুরতে যান আর আড্ডার মতো উপভোগ করুণ। হাসি খুশি ভাবে সময় কাটবে।


স্বাস্থ্য এর সর্বশেষ খবর

স্বাস্থ্য - এর সব খবর