ঢাকা, শুক্রবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৭, ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৪

কাবিনে শুরু, রাজনীতিতে শেষ!

২০১৭ ডিসেম্বর ০৭ ১৮:৩০:৩৯
কাবিনে শুরু, রাজনীতিতে শেষ!

সোহানুর রহমান সোহান পরিচালিত ‘অনন্ত ভালোবাসা’ ছবির মাধ্যমে শাকিব খান নামে অভিনয় জীবন শুরু করেন মাসুদ রানা। অপর দিকে, ২০০৫ সালে আমজাদ হোসেনের ‘কাল সকালে’ ছবির মাধ্যমে চলচ্চিত্রে পদার্পণ করেন অপু বিশ্বাস। ২০০৬ সালে এফআই মানিক পরিচালিত ‘কোটি টাকার কাবিন’ ছবিতে প্রধান নায়িকা হয়ে অপু অভিনয় করেন শাকিবের বিপরীতে।

‘কোটি টাকার কাবিন’ এর মধ্য দিয়েই অপু-শাকিবের প্রথম দেখা। সেখান থেকেই তাদের আন্তরিকতা গড়ে ওঠে। এরপর ফোন নম্বর বিনিময় এবং ফোনে কথা শুরু। এছাড়া ছবিটিও ব্যবসা সফল এবং অপু বিশ্বাসও রাতারাতি তারকায় রূপান্তরিত হন। এরপর প্রেম, বিয়ে, সন্তান, নয় বছরের গোপন সংসার এবং বিচ্ছেদ।

প্রথম ছবিতেই তারকাখ্যাতি পাওয়ার পরও ছবি নিয়মিত করার ইচ্ছা ছিল না অপুর, ভারতে গিয়ে পড়াশোনা করতে চেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু শাকিব বেশ কিছুদিন বগুড়া যাওয়া-আসা করতে থাকেন অপুর জন্য। অপু ভারত গিয়েছিল, শাকিবও গিয়েছিলেন বাই রোডে। দার্জিলিং ঘুরাফেরা শেষ করে শাকিব ঢাকায় ফেরেন।

এর কয়েক মাস পর ঢাকায় এসে আবার কাজ শুরু করেন অপু। শাকিবের ঘনিষ্ঠজনরা অপুকে জানাতে থাকেন অপুর প্রতি শাকিবের দুর্বলতার কথা। এরপর আস্তে আস্তে শাকিবের প্রতি অপুর দুর্বল হওয়া। ছবিতে নিয়মিত কাজ শুরু করেন। ব্যস্ততা বাড়লে একেবারে ঢাকায় চলে আসেন।

জাকির হোসেন রাজুর ‘মনে প্রাণে আছো তুমি’ ছবিতে কাজ করতে গিয়ে আবারো শাকিব-অপু এক হয়। বাংলা চলচ্চিত্রের অন্যতম একটি সফল জুটি শাকিব-অপু। জুটি বদ্ধ হয়ে দু’জনে ৭২টি ছবিতে অভিনয় করেছেন। উপহার দিয়েছেন চাচ্চু, দাদীমা, আমার জান আমার প্রাণ ও সম্রাট সহ অনেক ব্যবসা সফল ছবি। জনপ্রিয় এই জুটিকে সর্বশেষ একসাথে দেখা গিয়েছে ২০১৭ সালের ঈদুল ফিতরে মুক্তি পাওয়া ‘রাজনীতি’ ছবিতে।

শাকিব-অপু জুটির একটি সফল ছবি সোহানুর রহমান সোহান পরিচালিত ‘কথা দাও সাথী হবে’। ছবিটি দর্শকদের মন জয় করে, পাশাপাশি শাকিবের মন জয় করেন অপু। এই ছবির শুটিং চলা অবস্থাতেই শাকিব বিয়ের সিদ্ধান্ত নেন, এবং অপুকে বিয়ের প্রস্তাবও দেন।

এরপর ২০০৮ সালের ১৮ এপ্রিল শুক্রবার বিয়ে হয় শাকিব খান ও অপু বিশ্বাসের। গুলশানে শাকিবের বাসায় বিয়ের ব্যবস্থা করা হয়। বিয়েতে উপস্থিত ছিলেন অপু ও তার বোন লতা। অপুর উকিল বাবা হিসেবে কাবিননামায় স্বাক্ষর করেন মামুনুজ্জামান মামুন। অপুর পক্ষে স্বাক্ষর করেন লতা, আর শাকিবের চাচাতো ভাই মনির স্বাক্ষর করেন তার পক্ষে। বিয়েতে দুই পরিবারের তেমন কেউ উপস্থিত না থাকলেও ওই দিন রাতেই সবাই তা জেনে যান। শাকিব আর অপুর বাবা-মা বিষয়টি মানতে চাননি। মাস তিনেক পর মামুনের মধ্যস্থতায় সব কিছু স্বাভাবিক হয়।

এরপর অপু-শাকিবের বাসায় আসা-যাওয়া শুরু করেন। শুটিং না থাকলে অপু সন্তানসম্ভবা হওয়ার আগ পর্যন্ত শাকিবের বাসায় নিয়মিত থাকতেন। অন্যদিকে শাকিবও অপুর বাসায় যাওয়া আসা করতেন। এভাবে দুজনই বিষয়টি গোপন করে সংসার চালিয়ে যান। অতঃপর ২০১৬ সালে পুত্র সন্তানের মা হন অপু। তাদের একমাত্র সন্তানের নাম আব্রাহাম খান জয়- এই সব কিছুই ছিলো গোপন।

চলতি বছরের ১০ এপ্রিল, সময় তখন বিকেল চারটা। হঠাৎ অপু বিশ্বাসের মুখটা দেখা গেল একটা টেলিভিশন চ্যানেলের পর্দায়। দীর্ঘ ১০ মাস অন্তরালে থাকার পর সেদিনই প্রথম দেশের মানুষ তার দেখা পেল। কথা বলার এক পর্যায়ে অপু জানালেন, শাকিবের সঙ্গে তার বিয়ে, সন্তান আর সংসার নিয়ে নানান অজানা কথা।

অতঃপর একই বছরে বিয়ে ও বিচ্ছেদের খবর নিয়ে তুমুল আলোচনার সৃষ্টি করলেন দেশের তারকা অভিনেতা শাকিব খান ও অপু বিশ্বাস। বগুড়ার মেয়ে অপু বিশ্বাসকে এবার সত্যি সত্যি তালাক দেয়ার সিদ্ধান্ত নিলেন গোপালগঞ্জের ছেলে শাকিব খান রানা।

গণমাধ্যমে প্রকাশিতও হয়েছে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন বরাবর শাকিবের ডিভোর্স দেয়ার অনুমতি পত্রটি। ৪ ডিসেম্বর অপুকে ডিভোর্স দেয়ার অনুমতি পত্রটি গ্রহণ করে সিটি কর্পোরেশন। সেখানে লেখা আছে- আমি শাকিব খান রানা, অপু ইসলাম খানকে ২২ নভেম্বর, ২০১৭-তে উপস্থিত সাক্ষীর সামনে তালাক শব্দটি উচ্চারণ করে তার সঙ্গে সকল বৈবাহিক সম্পর্কোচ্ছেদ করলাম। সাক্ষীর নাম হিসেবে উল্লেখ আছে- মোহাম্মাদ আলী এবং আতাউর রহমানের নাম।

গত ২৮ নভেম্বর আইনজীবীর মাধ্যমে অপুর নিকেতন ও বগুড়ার বাসায় উকিল নোটিশ পাঠান শাকিব খান, ঐ দিনই ডিভোর্স লেটার সই করে শুটিংয়ের কাজে ভারতে চলে যান তিনি। সোমবার নোটিশটি অপুর হাতে পৌঁছায়।

শাকিব তার স্ত্রী অপু বিশ্বাসকে তালাক নোটিশ পাঠালেও তা কার্যকর হতে তিন মাস সময় লাগবে। এই সময়ের মধ্যে চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় এই জুটির সংসারে ভাঙন ঠেকাতে চেষ্টা চালাচ্ছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)। শাকিব-অপুসহ উভয়ের পরিবারের অভিভাকদের সঙ্গে প্রথমবারের মতো সালিশ বৈঠকে বসবে ডিএনসিসি কর্মকর্তারা।

ঢালিউড এর সর্বশেষ খবর

ঢালিউড - এর সব খবর

উপরে