ঢাকা, মঙ্গলবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৭, ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৪

যে কারনে জাতীয় দলে ফেরা চাই আশরাফুলের

২০১৭ ডিসেম্বর ০২ ০১:৩০:০৩
যে কারনে জাতীয় দলে ফেরা চাই আশরাফুলের

বিপিএলে ম্যাচ গড়াপেটায় দায়ে ২০১৩ সাল থেকেই বাংলাদেশের তারকা ক্রিকেটার মোহাম্মদ আশরাফুল জাতীয় দলের বাইরে। গত চার বছরে তার জীবনে এসেছে অনেক পরিবর্তন। বিয়ে করেছেন, কন্যা সন্তানের বাবা হয়েছেন। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তার ৫ বছরের নিষেধাজ্ঞা শেষ হবে ২০১৮ সালের আগস্ট মাসে। এবার স্ত্রী-কন্যার জন্যই জাতীয় দলে ফিরতে চান আশরাফুল। শুক্রবার তার নতুন রেস্টুরেন্ট ‘সিচুয়ান গার্ডেন ক্যাফে’ এর উদ্বোধনের আগে পরিবর্তন ডট কমকে দেয়া সাক্ষাৎকারে পরিবার, জাতীয় দলে ফেরা ও নিজের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান নিয়ে কথা বলেছেন তিনি।

নিষেধাজ্ঞা শেষে জাতীয় দলে ফেরা আশরাফুলের লক্ষ্য। সেজন্য ৩৩ বছর বয়সী বাংলাদেশি লিটল মাস্টার এখনও নিজেকে উজাড় করে দেয়ার অনুপ্রেরণা পান পরিবারের কাছ থেকে, ‘আমি যখন টকশো করি টিভিতে, আমার বাচ্চা তখন বাবা বাবা করে। টিভিতে খেলা হলেই বাবা বাবা করে। ভাবে যে আমি খেলছি। এটা তো অন্যরকম একটা ফিলিংস।’ বিয়ে করার সিদ্ধান্তটাও তার খেলোয়াড়ি জীবনে প্রভাব ফেলেছে বলে জানিয়েছেন তিনি, ‘যদি আমার বিয়ে আগেই হয়ে যেত তাহলে এই পাঁচ বছর গ্যাপের পর হয়ত ফিরে নাও আসতে পারতাম। তখন খেলাধুলা করব না অন্যকিছু করব সেই চিন্তা করতাম। কিন্তু ২০১৫ সালে বিয়ের পর মনে হয়েছে আমার ওয়াইফের জন্য এবং আমার মেয়ের জন্য হলেও জাতীয় দলে ফেরা উচিত। আমার ওয়াইফও হয়তো আগে আমার খেলা দেখেছে। কিন্তু বিয়ের পর তো দেখেনি।’

অনেকদিন দৃশ্যপটের বাইরে থাকার পরও ভক্তদের কাছে সমান জনপ্রিয় এই ব্যাটসম্যান। তাদের ভালবাসার কথাটা ভোলেননি তিনিও, ‘আমার ফ্যান যারা তাদের জন্য ফিরে আসব। প্রথম থেকেই এই বিশ্বাস ছিল আমার।’

গত বছর ঘরোয়া ক্রিকেটে ফিরেছেন। এবছর জাতীয় লিগে ভালো পারফর্ম করেছেন। আশরাফুলের মতে জাতীয় দলের সুযোগ পেতে আরও ধারাবাহিক হতে হবে, ‘বাংলাদেশ টিমে খেলতে হলে ডেফিনিটলি আমাকে এক্সট্রা অর্ডিনারি পারফরম্যান্স করতে হবে। হবে। জাতীয় লিগে পাঁচ ইনিংসে একটি সেঞ্চুরি, একটি ৬৬ ও একটি ৪০ রানের ইনিংস খেলেছি। আমার ওই দুটি ইনিংসে সেঞ্চুরি করা উচিত ছিল।’ ফিটনেস নিয়েও কাজ করতে চান আশরাফুল, ‘জাতীয় দলে খেলতে হলে ফিটনেস অনেক বাড়াতে হবে। ফিল্ডিং, ব্যাটিং, বোলিং এগুলো ঠিক আছে।’

২০১১ সালে কোচ ওয়াহিদুল গনির পাঁচ শিষ্য মিলে ঢাকার ওয়ারির র‍্যাংকিন স্ট্রিটে শুরু করেন ‘সিচুয়ান গার্ডেন থাই অ্যান্ড চাইনিজ রেস্টুরেন্ট’। শুক্রবার একই বিল্ডিংয়ের নিচতলায় তাদের হাতে যাত্রা শুরু করলো ফাস্টফুড রেস্টুরেন্ট ‘সিচুয়ান গার্ডেন ক্যাফে’। আশরাফুল জানালেন সারাজীবন সম্পর্ক ধরে রাখতেই তাদের এ উদ্যোগ, ‘১৯৯৬ সাল থেকে আমরা একসাথে। একসাথে যেন সারাজীবন থাকতে পারি সেই উদ্দেশ্যেই আসলে এখানে বিজনেসটা স্টার্ট করেছিলাম। আল্লাহর রহমতে ছয় বছর ধরে ভালোই যাচ্ছে। নিচে খালি পেলাম। তাই ফাস্টফুড আইটেম চিন্তা করলাম।’

সাবেক ক্রিকেটারদের মিলনমেলা দিয়েই শুরু হল নতুন রেস্টুরেন্টের যাত্রা। এসেছিলেন জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক ও বর্তমান প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু ও সাবেক ওপেনার জাভেদ ওমর বেলিম। এছাড়া এসেছিলেন জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক শফিকুল হক হীরা এবং বাংলাদেশের নামী ধারাভাষ্যকার চৌধুরী জাফরউল্লা শারাফাত। ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ৪১ নম্বর ওয়ার্ডের কমিশনার সারোয়ার হাসান আলোও ছিলেন সেখানে।

উপরে