ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর ২০১৭, ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৪

‘সংগীতাঙ্গনে খুব অস্থির সময় যাচ্ছে এখন’

২০১৪ অক্টোবর ৩০ ১১:২২:৫০
‘সংগীতাঙ্গনে খুব অস্থির সময় যাচ্ছে এখন’

দেশের জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী শুভ্রদেব। সেই শুরু থেকে এখন পর্যন্ত সংগীত জগতে দীর্ঘপথ সফলতার সঙ্গে পাড়ি দিয়ে চলেছেন তিনি।

এ সময়ে উপহার দিয়েছেন অসংখ্য জনপ্রিয় গান। অ্যালবামের পাশাপাশি স্টেজেও শুভ্রদেব নিয়মিত গান করে চলেছেন। এদিকে শিগগিরই প্রকাশ পেতে যাচ্ছে তার ক্যারিয়ারের ২৬তম একক অ্যালবাম ‘জলছবি’। নতুন অ্যালবাম, ক্যারিয়ার, এ সময়ের গানসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে মানবজমিনের সঙ্গে কথা বলেছেন শুভ্রদেব। লিখেছেন ফয়সাল রাব্বিকীন
কেমন আছেন?
খুব ভাল আছি। নতুন অ্যালবাম প্রকাশ প্রক্রিয়া নিয়ে একটু ব্যস্ত।
আপনার নতুন অ্যালবাম ‘জলছবি’ ফিজিক্যালি প্রকাশ পাচ্ছে? এ সম্পর্কে বলুন।
তিন বছর পর আমার নতুন একক অ্যালবাম বের হচ্ছে। ‘জলছবি’ নামক এ অ্যালবাম প্রকাশ পাবে লেজারভিশন থেকে। এটি আন্তর্জাতিকভাবে বাজারজাত করবে কাইনেটিক। এটি গত রোজার ঈদে গ্রামীণফোনে প্রকাশ পায়। এখন অবশ্য সব অপারেটরেই গানগুলো পাওয়া যাচ্ছে। এখানে মোট ৮টি গান থাকছে। গানগুলোর কথা লিখেছেন কবির বকুল, মিলন খান, শহিদুল্লাহ ফরায়েজী, লিটন অধিকারী রিন্টু ও কলকাতার উৎপল দাস। আমি ছাড়াও সুর-সংগীতায়োজন করেছেন পঙ্কজ, জেকে ও কলকাতার রকেট মণ্ডল।
গানগুলোর ধরন কেমন? ডিজিটালি প্রকাশে কেমন রেসপন্স পেয়েছেন।
গানগুলোর ধরন হলো আধুনিক মেলোডি। গ্রামীণফোন ও অন্য অপারেটর থেকে ভাল রেসপন্স পেয়েছি। আশা করছি ফিজিক্যালি প্রকাশের পর আরও বেশি রেসপন্স পাবো।
কিশোর কুমারের হিন্দি ও বাংলা গান নিয়ে দু’টি অ্যালবাম করছেন? সেই কাজ কতদূর?
কিশোর কুমারের অ্যালবামের কাজ চলছে। তবে ‘জলছবি’ প্রকাশের পর বোধহয় আমি একটি ডাবল অ্যালবাম শ্রোতাদের হাতে তুলে দেবো। আমার পঁচিশটি অ্যালবাম থেকে বাছাই করা জনপ্রিয় ২০-২৪টি গান থাকবে সেখানে। এটি হবে একটি ডাবল অ্যালবাম।
এই সময়ের গান কেমন মনে হয়? নতুনরা কেমন করছে?
এখন গানে যেটা প্রবলেম হচ্ছে এটা পয়েন্ট আউট করা উচিত। বিভিন্ন চ্যানেলে যেসব সংগীত প্রতিযোগিতা হচ্ছে তাতে বিচারকদের লেভেলের মধ্যে সামঞ্জস্য নেই। দেখা যাচ্ছে অনেক অভিজ্ঞ একজনের সঙ্গে এই সময়ের অনভিজ্ঞ একজনকে বিচারক হিসেবে নেয়া হচ্ছে। এটা কিছু কিছু ক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে। সংগীত প্রতিযোগিতার বিচারক হতে হবে অভিজ্ঞতার আলোকে। শিক্ষক যদি ভাল না হয় ছাত্রও ভাল হবে না। এ কারণে অনেক সময় দেখা যায় ভাল প্রতিযোগীরা বাদ পড়ছে। আর নতুনরা বেশি প্রযুক্তিনির্ভর হয়ে পড়ছে। সুরের সেন্সটা তাদের মধ্যে কম। সফটওয়্যার দিয়ে নিশ্চিন্ত মনে তারা গেয়ে যাচ্ছে। যার জন্য কোয়ালিটি শিল্পীর অভাব দেখা দিচ্ছে। তাছাড়া বিভিন্ন প্রতিযোগিতার আর্টিস্টদের ক্ষেত্রে মিডিয়াও সুবিচার করতে পারছে না। সংগীতাঙ্গনে খুব অস্থির সময় যাচ্ছে এখন। না জানা লোকের সংখ্যা বেশি। যার যেখানে থাকা উচিত না সে সেখানে কাজ করছে। তবে এর মধ্যে শেষ পর্যন্ত যাদের কোয়ালিটি আছে তারাই টিকে থাকবে।

সঙ্গীত এর সর্বশেষ খবর

সঙ্গীত - এর সব খবর

উপরে