ঢাকা, সোমবার, ২০ নভেম্বর ২০১৭, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৪

গান নিয়েই থাকতে চাই

২০১৪ অক্টোবর ২৯ ২১:১৬:৪৯
গান নিয়েই থাকতে চাই

না শিখে না জেনে গান গেয়েও রাতারাতি তারকা খ্যাতি যারা পান তারা সময়ের সঙ্গে হারিয়ে যান। সাময়িকভাবে সস্তা জনপ্রিয়তা মিললেও দীর্ঘ

সময় ধরে শ্রোতাদের মনে অবস্থান করতে পারেন না। সংগীতবোদ্ধাদের এমন কথার বাস্তব নজিরও আমাদের দেশে অনেক রয়েছে। কাছাকাছি সময়ে অনেকে রাতারাতি জনপ্রিয়তা পেয়ে কালের গর্ভে হারিয়েও গেছেন। তবে যারা ধীরে ধীরে শিখে, যেনে, বুঝে গানকে মন থেকে ভালবেসে দীর্ঘ সময় ধরে পথ চলতে পারেন তাদের বলা হয় লম্বা রেসের ঘোড়া। তেমনই একজন হচ্ছেন দিলশাদ নাহার কণা। ছোটবেলা থেকে গান করলেও কখনও হুটহাট খ্যাতি পাওয়ার ইচ্ছে কিংবা আগ্রহ তার মধ্যে ছিল না। পেশাগতভাবে ‘জ্যামিতিক ভালবাসা’ অ্যালবাম দিয়ে ২০০৬ সালে সংগীতাঙ্গনে যাত্রা শুরু হয় তার। অ্যালবামটি শ্রোতামহলে ভাল সাড়া ফেলে। যার বদৌলতে দুই বছর পরই দ্বিতীয় একক ‘ফুয়াদ ফিট কণা’র মাধ্যমে এক নতুন কণাকে আবিষ্কার করতে পারেন শ্রোতারা। অ্যালবামের ‘বৃষ্টি’ গানটি ভাল আলোচনায় আসে। এরপর ২০১১ সালে ‘সিম্পলি কণা’ নামক তৃতীয় অ্যালবাম প্রকাশ পায় কণার। এর একটি ব্যয়বহুল ভিডিও অ্যালবাম দিয়ে কণা বাজিমাত করেন। অ্যালবামের একাধিক গান শ্রোতাপ্রিয়তা পাওয়ার পাশাপাশি ভিডিওগুলো ব্যাপকভাবে প্রশংসিত হয়। এদিকে অ্যালবামের বাইরে এখন নিয়মিত জিঙ্গেল ও প্লেব্যাক করে চলেছেন কণা। এ তিনটি মাধ্যমেই যে কণা লম্বা রেসের ঘোড়া সেটা কাজের মাধ্যমে প্রতিনিয়ত প্রমাণ করে চলেছেন তিনি। প্রতিদিনই জিঙ্গেল ও চলচ্চিত্রের গানসহ স্টেজ শো নিয়ে ব্যস্ত থাকতে হচ্ছে তাকে। শ্রোতাদের কাছাকাছি পর্যন্ত আস্তে ধীরেই পৌঁছেছেন সুকণ্ঠী কণা। তার ফলাফলও পাচ্ছেন দারুণভাবে। এখন পর্যন্ত কণা প্রায় ১০০টিরও বেশি চলচ্চিত্রের গানে কণ্ঠ দিয়েছেন। এর মধ্যে বেশ কিছু গান ভাল জনপ্রিয়তা পেয়েছে। সর্বশেষ ‘বৃহন্নলা’ ছবিতে তার গাওয়া গান প্রশংসা কুড়িয়েছে। এদিকে গেল সপ্তাহেই শওকত আলী ইমনের সুর-সংগীতে কবির বকুলের লেখায় ‘ব্ল্যাকমানি’ ছবিতে গান গেয়েছেন তিনি। এর বাইরে ‘ইউটার্ন’ ছবিতে দুটি গানে কণ্ঠ দিয়েছেন। এর মধ্যে একটি গানে কণাকে ছবিতে পারফর্মও করতে দেখা যাবে। এ নিয়ে অনেক পত্রিকাই খবর প্রকাশ করেছে, কণা চলচ্চিত্রে অভিনয় করছেন। এ বিষয়ে দ্বিমত পোষণ করে কণা বলেন, ‘ইউটার্ন’ চলচ্চিত্রে দুটি গানে কণ্ঠ দিয়েছি। এর মধ্যে একটি গানে ছবিতে আমি পারফর্ম করবো। এটা মিউজিক ভিডিওর মতো করেই করবো। এটাকে অভিনয় বললে ভুল হবে। আমি অভিনয় করছি না। আমি গানের মানুষ, গান নিয়ে থাকতে চাই। এদিকে কণা এখন পর্যন্ত প্রায় ৬০০টি জিঙ্গেলে কণ্ঠ দিয়েছেন। টিভি খুললেই ধারাবাহিকভাবে কণার গাওয়া বিজ্ঞাপনের জিঙ্গেল শোনা যায়। শুধু তাই নয়, গুণী এ শিল্পী ভয়েস আর্টিস্ট হিসেবে কাজ করেছেন প্রায় ৪০০ বিজ্ঞাপনে। এই তো, সোমবার আরও তিনটি বিজ্ঞাপনে ভয়েস আর্টিস্ট হিসেবে কণ্ঠ দিলেন তিনি। সব মিলিয়ে যেন চ্যানেলগুলোর বিজ্ঞাপন এখন কণাময় হয়ে উঠেছে। এ বিষয়ে কণা বলেন, জিঙ্গেল কিংবা ভয়েস আর্টিস্ট হিসেবে কাজ করেই যাচ্ছি। হিসাব তো রাখিনি। তবে ৪০০টির মতো ভয়েস আর্টিস্টের কাজ তো করেছি। ভালই লাগে যখন একের পর এক বিজ্ঞাপনে নিজের গাওয়া জিঙ্গেল অথবা ভয়েস শুনতে পাই। এদিকে ‘সিম্পলি কণা’র সফলতার পর এবার কণা কাজ শুরু করেছেন নিজের চতুর্থ এককের। এরই মধ্যে কণার এ অ্যালবামের জন্য গান তৈরি করেছেন বাপ্পা মজুমদার, ফুয়াদ আল মুক্তাদির ও হৃদয় খান। নতুন বছরে অ্যালবামটি শ্রোতাদের উপহার দিতে চান। এ বিষয়ে কণা বলেন, আগের তিনটি অ্যালবাম যেহেতু শ্রোতারা ভালভাবে গ্রহণ করেছেন, তাই এবার দায়িত্বটা আরও বেড়ে গেছে। বাপ্পা দা, ফুয়াদ ভাই ও হৃদয় গান তৈরি শুরু করেছে। কম্পোজারের তালিকায় আরও কেউ যোগ হতে পারে আবার নাও হতে পারে। গত অ্যালবামগুলোতে নিজের যে ধারা তৈরি করেছি সেটা এ অ্যালবামে অব্যাহত থাকবে। তবে গানে ভিন্নতা খুঁজে পাবেন শ্রোতারা। অপেক্ষায় থাকুন।

সঙ্গীত এর সর্বশেষ খবর

সঙ্গীত - এর সব খবর

উপরে