ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭, ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৪

মাহির ঈদ কড়চা

২০১৪ জুলাই ২৮ ১৩:১২:৩০
মাহির ঈদ কড়চা

বাংলা সিনেমার হালের ব্যস্ততম অভিনেত্রী মাহি সহজে কাজ থেকে ফুরসত পান না। ঈদের দিনটা ছুটি পেয়ে তাই ঘুমিয়েই কাটাবেন বলে জানালেন।


মাহি সপরিবারে ঈদ উদযাপন করবেন রাজশাহীতে। রাজশাহীতেই দাদা ও নানার বাড়ি। নানীর সঙ্গে সময় কাটাতে ঈদের সারাদিন থাকবেন মামাবাড়িতে।

তবে মাহি জানালেন তার ঈদের আনন্দে বাধ সাধছে ‘হানিমুন’ সিনেমাটি। ঈদুল ফিতরের দিনই মুক্তি পাচ্ছে বাপ্পী-মাহি জুটির এই সিনেমা।

“ঈদে আমার অভিনীত ‘হানিমুন’ মুক্তি পাবে। সারাদিন টেনশনে থাকব। সিনেমাটি কোথায় কেমন চলল, এ নিয়ে খবর নিতে হবে। দর্শক কতটা গ্রহণ করল আমাকে তা নিয়েও টেনশনে থাকব। ঈদের দিনটা পুরোপুরি এনজয় করতে পারব না।”

আর সেই সঙ্গে সালামি দেওয়া এড়াতে মোক্ষম এক বুদ্ধি বের করেছেন বলেও জানালেন, “যখন ছোট ছিলাম, নানুবাড়ির ঈদ কত মজার ছিল। কিন্তু এখন বড় হয়েই যত বিপত্তি। মামাতো ভাইবোনগুলো সালামির জন্য ঘুর ঘুর করছে। কোথায় আমি সবার কাছ থেকে সালামি নিব, তা এখন সব বিচ্ছুগুলো আমার পিছনে লেগেছে। আমি ঠিক করেছি, ঈদের দিন খুব বেলা করে উঠব। আমার ঘুমে ব্যাঘাত ঘটানো বারণ। ওরা হতাশ হয়ে চলে যাবে। আমাকে সালামি দিতে হবে না।”

আরও কথা বললেন ঈদের কেনাকাটা নিয়ে।

“এবার ঈদে সবার জন্য কেনাকাটা করার পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু সময় হয়নি। আব্বুর জন্য কেনাকাটা করেছি অনেক। আব্বুকে অনেকগুলো পোশাক কিনে দিয়েছি। কিন্তু আম্মুকে কিছু দিতে পারিনি। আম্মু খোঁটা দিচ্ছে।”

ছোটবেলার ঈদের স্মৃতিও ভাগাভাগি করে নিলেন, “ঈদে ভাইবোনগুলোকে নিয়ে দূরে কোথাও গেলে আম্মু ভীষণ রেগে যেত। তাকে বলে যেতাম না। ফিরে আসলে আম্মুরহাতে মার অনিবাযর্।”

মাহি জানালেন, ঈদে তার প্রিয় খাবার তেহারি।

“নানীর হাতে বানানো তেহারি পেলে আর কিছুই চাই না। নানী জানি কেমন করে বানায় ওটা। খুব সুস্বাদু।”

উপরে